মুম্বই: বড়সড় সাফল্য মুম্বই পুলিশের৷ কুখ্যাত ডন দাউদ ইব্রাহিম ও ছোটা শাকিলের ডান হাত আফরোজ ওয়াদারিয়া ওরফে আহমেদ রাজাকে গ্রেফতার করল মুম্বই পুলিশ৷ সংবাংদসংস্থা আইএএনএস-কে এখবর জানিয়েছেন মুম্বই পুলিশের উচ্চপদস্থ পুলিশ আধিকারিকরা৷

এর আগে, এই আফরোজের বিরুদ্ধে লুক আউট নোটিশ জারি করা হয়৷ এর বিরুদ্ধে একাধিক হাওয়ালা কেসে জড়িত থাকার অভিযোগ ওঠে৷ মঙ্গলবার আফরোজকে গ্রেফতার করার ফলে তদন্তে বেশ কিছুটা অগ্রগতি হবে বলেই মনে করা হচ্ছে৷ মঙ্গলবার বিমানবন্দরে নামতেই তাকে গ্রেফতার করে মুম্বই পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়৷

পুলিশ সূত্রে খবর, আফরোজের বিরুদ্ধে ভারতে হাওয়ালা নেটওয়ার্ক ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে৷ দাউদ ও ছোটা শাকিলের হয়ে বিভিন্ন বেআইনী টাকার লেনদেন করত আফরোজ, যা সরাসরি যেত অন্ধকার জগতের নানা অসামাজিক কাজে৷

আরও পড়ুন : মোদীর ডলারে ঋণ নেওয়াকে ভাল চোখে দেখছে না সঙ্ঘ পরিবার

সূত্রের খবর, এই আফরোজা দাউদ ইব্রাহিমের ঘনিষ্ঠ ফাহিম মাচমচের সঙ্গে প্রত্যক্ষ ভাবে জড়িত৷ তাই পুলিশ মনে করছে আফরোজাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে ফাহিম সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে৷

সুরাত, মুম্বই ও থানে জুড়ে হাওয়ালা নেটওয়ার্ক ছড়িয়েছিল আফরোজ৷ সুরাতের নামকরা ব্যবসায়ীদের থেকে দাউদ ও ছোটা শাকিলের নামে একাধিকবার মোটা অঙ্কের টাকাও তুলেছে আফরোজ৷ সেই টাকায় আরও বৃদ্ধি পায় তাদের হাওয়ালা ব্যবসা৷

গত এক বছর ধরেই মুম্বই পুলিশের নজরে ছিল এই আফরোজ৷ আফরোজ গত মাসে দুবাইতে একবার আটক হয়৷ তারপরেই তাকে ভারতে নিয়ে আসার তোড়জোড় শুরু করে মুম্বই পুলিশ৷ ক্রাইম ব্র্যাঞ্চের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, মুম্বই, থানে ও সুরাতে আর কারা এই ব্যবসার সঙ্গে জড়িত, এবার তাদের ট্র্যাক করতে শুরু করা হবে৷

আরও পড়ুন : মুম্বই সন্ত্রাসের মূলচক্রী হাফিজ সইদ গ্রেফতার

এর আগে, ১৯৯৩-এ মুম্বই বিস্ফোরণে অন্যতম অভিযুক্ত দাউদ ইব্রাহিম করাচিতেই লুকিয়ে রয়েছে বলে দাবি করে জি নিউজ সংবাদ মাধ্যম৷ তাদের রিপোর্টে তারা জানায়, পাকিস্তান দাউদের উপস্থিতি বারবার অস্বীকার করলেও করাচিতেই রয়েছে দাউদ৷

ইন্টালিজেন্স এজেন্সির পক্ষ থেকে জানানো হয়, জাবির মোতিওয়ালার সঙ্গে দাউদ যখন দেখা করে এই ছবি সেই সময় নেওয়া৷ এজেন্সির রিপোর্ট অনুযায়ী, করাচিতে দাউদের ক্লিফটন হাউসের পাশের বাড়িটিই মোতিওয়ালার৷ ২০১৮ সালের ১৭ অগস্ট তাকে স্কটল্যান্ড থেকে গ্রেফতার করা হয় টাকা তছরুপ, তোলাবাজি, মাদক পাচার এমনই বিভিন্ন অভিযোগে৷

মে মাসে নেপাল থেকে গ্রেফতার করা হয় দাউদ ঘনিষ্ঠ ইউনুস আনসারিকে৷ জানা যায়, আইএসআই-এর জন্য কাজ করত এই আনসারি৷ ইউনুসের সঙ্গে তিন পাক নাগরিককে প্রায় ৭.৫ কোটি জাল ভারতীয় নোটসহ গ্রেফতার করা হয়৷