স্টাফ রিপোর্টার: সময়ের অপেক্ষা আছড়ে পড়তে চলেছে ঘূর্ণিঝড় । ভারত মহাসাগর এবং দক্ষিণ – পূর্ব বঙ্গোপসাগরের মাঝে ইতিমধ্যেই তৈরি হয়ে গিয়েছে নিম্নচাপ। হাওয়া অফিস জানাচ্ছে এটি ১৬ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টায় উত্তর – পশ্চিম দিকে এগিয়ে গিয়েছে। সকাল সাড়ে ১১টার সময় এটি উত্তর পশ্চিম দিকে এগিয়ে গিয়েছে। অবস্থান করছে শ্রীলঙ্কার ট্রিঙ্কোমালির ১০৯০ কিলোমিটার পূর্ব – দক্ষিণ পূর্বে, চেন্নাইয়ের ১৪৪০ কিলোমিটার দক্ষিণ পূর্বে এবং অন্ধ্রের মছিলিপট্টনমের ১৭২০ কিলোমিটার দক্ষিণ ও দক্ষিণ পূর্বে তিন ডিগ্রি উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৯.৪ ডিগ্রি দ্রাঘিমাংশে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় নিম্নচাপটি আরও ঘনীভূত হবে। এর পরবর্তী ১২ ঘণ্টায় এটি ক্রমে ঘূর্ণিঝড়ের রূপ নেবে।

আগামী ৯৬ ঘণ্টায় অর্থাৎ ৩০ এপ্রিল এটি উত্তর পশ্চিম দিকে এগিয়ে গিয়ে শ্রীলঙ্কার কাছে এসে পৌঁছে যাবে। আঘাত হানবে উত্তর তামিলনাড়ু ও দক্ষিণ অন্ধ্রের উপকূলে। এর জেরে চেন্নাইসহ তামিলনাড়ুর উপকূলে ভারী বৃষ্টিপাত হবে সঙ্গে তুমুল ঝড় হবে বলে জানাচ্ছে মৌসম ভবন। সতর্কবার্তা এমনই। চেন্নাইয়ের রিজিওনাল মেটিরিওলজিক্যাল সেন্টারের ডেপুটি ডিরেক্টর জেনারেল এস বালাচন্দ্রন বলেন, ঝড় উপকূলের পাশ দিয়ে চলে যাবে অথবা কিছুটা দূর দিয়ে যাবে। কতটা দূর দিয়ে সাইক্লোনটি যাবে, তার উপর নির্ভর করবে বৃষ্টিপাতের পরিমান।

বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপের জেরে এই ফেনি নামক সাইক্লোন তৈরি হয়েছে বলে জানাচ্ছে আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা৷ ১১৫কিলোমিটার প্রতি ঘন্টায় ঝড়ের গতিবেগ হতে পারে বলে জানাচ্ছে ইন্ডিয়ান মেটেরিওলজিক্যাল ডিপার্টমেন্ট৷ তাই ইতিমধ্যেই রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে৷ গত বছর নভেম্বরে ‘গাজা’ আছড়ে পড়েছিল৷ ফেনির আবির্ভাব ঘটলে, গত ছয়মাসে এই নিয়ে দ্বিতীয়বার এই পরিস্থিতির মুখে পড়তে চলেছে তামিলনাড়ু৷ পর্যটক থেকে মৎস্যজীবী সকলের জন্যই সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে, যাতে সমুদ্রের ধারেকাছে কেউ না যায়৷ তবে এই ফেনির জন্য বেশ কিছু ক্ষয়ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।