ওয়েলিংটন: বিশ্ব জুড়ে একের পর এক সাইক্লোন। কিছুদিন আগেই ভারতে আড়ে পড়েছিল বুলবুল, যার জের চলছে এখনও। এখনও বহু মানুষ ঘর পায়নি। এরই মধ্যে সাইক্লোন কালমেগির খবরে আতঙ্ক ছড়িয়েছিল, যদিও ‘কালমেগি’ ভারতের দিকে আসেনি। এবার আরও এক ঘূর্ণিঝড়ের উপস্থিতির খবর।

গত বছর সাইক্লোন ‘গীতা’র ধাক্কায় তছনছ হয়ে গিয়েছিল বিস্তীর্ণ অঞ্চল। এবছর আসছে ‘রিতা’। নিউজিল্যান্ডে আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা সেই ট্রপিক্যাল সাইক্লোনের। আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন, সতর্ক থাকা জরুরি। যে কোনও পরিস্থিতির জন্য তৈরি থাকতে হবে।

সাম্প্রতিককালে এটাই সর্বপ্রথম ট্রপিক্যাল সাইক্লোন। ফিজি-র মেট সার্ভিস প্রথম এই ওয়ার্নিং দিয়েছে। দ্রুত এই সাইক্লোন ‘ক্যাটাগরি-২’ তে পরিণত হবে বলে জানা গিয়েছে। এই ঝড়ের জেরে একটা বড় অঞ্চলে ব্যাপক বৃষ্টিপাত হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

১১০ কিমি প্রতি ঘণ্টা গতিতে এগিয়ে আসছে সেই ঝড়। আছড়ে পড়ার আগে এর গতি হতে পারে ১৬০ কিমি।

প্রত্যেক বছর অন্তত একটা করে ট্রপিক্যাল সাইক্লোনের শিকার হয় নিউজিল্যান্ড। নিউজিল্যান্ড-সহ দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে এই সময়টা ঘূর্ণিঝড়ের সময়। প্রত্যেক বছরেই ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয় নিউজিল্যান্ড।

কিছুদিন আগেই ভিয়েতনামের দিকে ধেয়ে এসেছিল ঘূর্ণিঝড় কালমেগি। ২০ নভেম্বর ফিলিপিন্সের রাজধানী ম্যানিলা থেকে ১০৯ নটিক্যাল মাইল দূরে অবস্থান করছিল কালমেগি। তখনই সতর্কবার্তা জারি করে আবহাওয়া দফতর।

এরপর ২১ নভেম্বর নাসার অ্যাকোয়া স্যাটেলাইটে ধরা পড়ে সেই ছবি। স্যাটেলাইট ইমেজে দেখা যাচ্ছে, ঝড়ের কোনও আকার নেই।

ইতিমধ্যেই এই ঝড়ের জন্য ৫ হাজার মানুষকে নিরাপদ দূরত্বে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

ফিলিপিন্স প্রতিবছরই বড়সড় ঘূর্ণিঝড়ের শিকার হয়। ফিলিপিন্স বাঁচে ঘূর্ণিঝড়ের সঙ্গে লড়াই করে। কিন্তু উল্লেখযোগ্যভাবে গত প্রায় ১ বছরে তেমন কোনও বড়সড় ঘূর্ণিঝড় এই ভূখণ্ডে হানা দেয়নি।

স্থানীয়রা অবশ্য এই ঝড়কে কালমেগি বলছেন না। তাঁরা নাম দিয়েছেন রামন।