কলকাতাঃ  ক্রমশ শক্তি বাড়িয়ে ধেয়ে আসছে ঘুর্ণিঝড় ফণী। পরিস্থিতি রীতিমতো চিন্তার হয়ে উঠছে প্রশাসনের কাছে। ইতিমধ্যে বাংলা এবং ওডিশাতে হাই-অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে। বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গে কলকাতা সহ উপকূলবর্তী এলাকায় বাড়তি সতর্কতা নেওয়া হচ্ছে প্রশাসনের তরফে। ইতিমধ্যে কলকাতা পুরসভায় কন্ট্রোল রুম খোলা রয়েছে। যে কোনও পরস্থিতির জন্যে কর্মীদের ঝাঁপিয়ে পড়ারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে নবান্নের তরফে।

মঙ্গলবার এই বিষয়ে আগাম সতর্কতা হিসাবে একটি জরুরি বৈঠক হয়ে গিয়েছে নবান্নে। সাইক্লোন আছড়ে পড়ার কীভাবে তা মোকাবিলা করা সম্ভব তা নিয়েই মূলত আলোচনা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। অন্যদিকে জরুরি বৈঠক বসেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও। সকালে তাঁর দফতরের আধিকারিকদের সঙ্গে জরুরি বৈঠক সারেন।

সেখানে তাঁর সচিব, সহ আধিকারিকদের বিপর্যয় মোকাবিলার জন্যে তৈরি থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়। পাশাপাশি উদ্ধার এবং ত্রাণ পৌঁছে দেওয়ার জন্যে দেশের সমস্ত এয়ারলাইন্সকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান সুরেশ প্রভু।

অন্যদিকে, তৈরি রাখা হয়েছে ভারতীয় রেলওয়েকেও। ঘুর্ণিঝড়ের ছোবল থেকে বাঁচতে প্রস্তুতিতে কোথাও কোনও খামতি রাখছে না প্রশাসন থেকে রেল। ইতিমধ্যে হাওড়া, খড়গপুর ও বালেশ্বরে হেল্পালাইন নাম্বার চালু করেছে বিএসএনএল ও রেল।

একনজরে নম্বরগুলি- খড়গপুর জংশন- ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট রুমে রেল (৬৩৫৩৫) ও বিএসএনএল (০৩২২২২২১৬৯৬), প্ল্যাটফর্মে রেল (৬৩৯৫০) ও বিএসএনএল (০৩২২২২৫৫৭৫৮) বালেশ্বরে রেল (৬৪৯০৮/৯) ও বিএএসএনএল (০৬৭৮২২৬২৭৬), হাওড়ায় রেল (৪৫২৭১) ও বিএসএনএল (০৩৩২৬৪১২৯৭৫)