রাজকোট: সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টির আগে রাতের ঘুম কেড়েছিল দিল্লির দূষণ। তবে সমস্ত ভ্রূকুটি উপেক্ষা করে প্রথম টি-২০ সম্পন্ন হয়েছে নির্বিঘ্নেই। যার জন্য দু’দলের ক্রিকেটারদের ম্যাচ শেষে সোশ্যাল মিডিয়ায় ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন স্বয়ং বোর্ড প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। তবে ভারত-বাংলাদেশ সিরিজের দ্বিতীয় টি-২০ ম্যাচেও বাধ সাধতে পারে প্রকৃতি। সোজা কথায় বলতে গেলে সাইক্লোন ‘মহা’ থাবা বসাতে পারে ভারত-বাংলাদেশ সিরিজের দ্বিতীয় টি-২০ ম্যাচে। যার জেরে ম্যাচ বানচাল হওয়ার প্রবল আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

৭ নভেম্বর রাজকোটের সৌরাষ্ট্র ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়ামে সিরিজের দ্বিতীয় টি-২০ ম্যাচে মুখোমুখি হওয়ার কথা ভারত-বাংলাদেশের। কিন্তু সাইক্লোন ‘মহা’র কারণে আগামী ৬ এবং ৭ নভেম্বর সৌরাষ্ট্র এবং দক্ষিণ গুজরাত জুড়ে ভারি থেকে অতি ভারি বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া দফতর। সৌরাষ্ট্রের আঞ্চলিক আইএমডি ডিরেক্টর জয়ন্ত সরকার পিটিআই’কে জানিয়েছেন, ‘আপাতত দিউ থেকে ৫৮০ কিমি দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছে সাইক্লোন। মনে করা হচ্ছে বুধবার রাতে দ্বারকা এবং দিউয়ের মধ্যবর্তী অঞ্চল দিয়ে প্রবেশ করবে সাইক্লোন মহা এরপর বৃহস্পতিবার সকালে ১২০ কিলোমিটার বেগে গুজরাতের উপকূল বরাবর আছড়ে পড়বে সেটি।’

আইএমডি ডিরেক্টর আরও জানিয়েছেন, ‘ঝড়ের কারণে ৬ এবং ৭ নভেম্বর সৌরাষ্ট্র এবং দক্ষিণ গুজরাত জুড়ে ব্যাপক হারে বৃষ্টিপাতের আশঙ্কা করা হচ্ছে। ঝড়ের গতিপথ ওমানের দিকে বাঁক নিলেও সোমবার গুজরাতের উপকূলবর্তী অঞ্চল জুড়ে আবর্তিত হবে মহা।’ আর আবহাওয়ার এই পূর্বাভাস যদি সত্যি হয় তবে নিশ্চিতভাবে ব্যাপক বৃষ্টিপাতের কারণে ভেস্তে যাবে ভারত-বাংলাদেশ সিরিজের দ্বিতীয় টি-২০। সাইক্লোন ‘মহা’ নিয়ে উদ্বিগ্ন ধারাভাষ্যকর হর্ষ ভোগলে টুইটারে লেখেন, ‘চলতি বছর আবহাওয়া ব্যাপক খামখেয়ালীপনার পরিচয় দিচ্ছে। আশা করব এই সাইক্লোন যেন ব্যাপক আকার ধারণ না করতে পারে।’

সাইক্লোন ‘মহা’ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জাতীয় দলের অফ-স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিনও। উল্লেখ্য, রাজধানীর আবহাওয়ায় দূষণ ভ্রূকুটি উপেক্ষা করে রবিবার অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামে নির্বিঘ্নেই সম্পন্ন হয় সিরিজের প্রথম টি-২০। আর সেই ম্যাচে ভারতকে হারিয়ে তিনম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে লিড নিয়েছে বাংলাদেশ। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম ফর্ম্যাটে এই প্রথমবার ভারতকে হারাল টাইগার্সরা।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও