পুরী: ছোবল মারতে আসছে ফণী৷ ভয়ে জগন্নাথধাম ছাড়ার হিড়িক পড়েছে পর্যটকমহলে৷ পুরী প্রশাসনও পর্যটকদের নিরাপদে বাড়ি পাঠাতে তৎপর হয়ে উঠেছে৷ তাই সব হোটেলে পাঠানো হয়েছে নির্দেশিকা৷ ওই নির্দেশিকায় স্পষ্ট বলা হয়েছে, ফণীর কারণে ঘণ্টায় ১৮০ থেকে ২০০ কিমি বেগে ঝড় বইবে৷ সেই সঙ্গে রয়েছে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস৷ তাই আগামী ৫ মে পর্যন্ত সব হোটেলের বুকিং বাতিল করার নির্দেশ জারি করা হচ্ছে৷

১মে ওই নির্দেশিকা জারি করেন পুরীর জেলাশাসক৷ সেখানে ফণীর কারণে প্রবল প্রাকৃতিক দুর্যোগ ঘনিয়ে আসার আশঙ্কা করা হয়েছে৷ বলা হয়েছে, ভারী বৃষ্টিপাতের জেরে সড়ক, রেল ও আকাশপথে সব যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারে৷ থাকবে না বিদ্যুত সংযোগ৷ তাই পর্যটকদের যাতে কোনও রকম অসুবিধার মুখে না পড়তে হয় তার জন্য তাদের পুরী ছাড়ার অনুরোধ করা হচ্ছে৷ আর আগামী ৫ মে অবধি সব বুকিং বাতিল করার নির্দেশ দেওয়া হল হোটেল মালিকদের৷

ফলে এখন বাক্স গুটিয়ে পর্যটকরা রওনা দিচ্ছেন স্টেশন অথবা বিমানবন্দরের দিকে৷ এদিকে বাংলার পর্যটকদের ফিরিয়ে আনতে উদ্যোগী হয়েছে রেল৷ বৃহস্পতিবার পুরী থেকে তিনটি স্পেশাল ট্রেন চালানো হবে৷ একটি ছাড়ার কথা বেলা ১২টায়৷ বাকি দুটি ট্রেন ছাড়বে দুপুর ২টো ও সন্ধ্যা ৬টায়৷ বেলা ১২টার ট্রেনটি পৌঁছবে শালিমার স্টেশন৷ বাকি ট্রেন দুটি আসবে হাওড়ায়৷

৩ মে ফণী দক্ষিণ পুরীর দিকে চলে আসবে। তখন এর গতিবেগ হতে পারে সর্বোচ্চ ২০৫ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা। ৫ মে পর্যন্ত ফণী তাণ্ডব চালাবে সাগর উপকূলবর্তী অঞ্চল এবং সংলগ্ন শহর গ্রামে। তাই ওডিশাতে কমলা সতর্কতা জারি করেছে প্রশাসন৷ ইতিমধ্যে উপকূলবর্তী এলাকা থেকে গ্রামবাসীদের অন্যত্র নিয়ে যাওয়া হয়েছে৷ হিসাব বলছে এখনই প্রায় আট লক্ষ মানুষ বাড়ি ছাড়া হয়েছেন৷ পরে এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে৷

তৈরি থাকতে বলা হয়েছে রাজ্য ও জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী, ভারতীয় বায়ুসেনা ও উপকূলরক্ষী বাহিনীকে৷ স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছে, রাজ্যে ২৮টি জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা টিম প্রস্তুত৷ এছাড়া অতিরিক্ত ৩০টি দল নৌকা, গাছ কাটার যন্ত্রপাতি ও অন্যান্য সরঞ্জাম নিয়ে তৈরি আছে৷ আগাম সতর্কতা হিসাবে আগামী তিন দিন ওডিশার সকল স্কুল ও কলেজ বন্ধ রাখার নির্দেশ জারি করা হয়েছে৷

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV