কলকাতা : কেন্দ্র যতই টাকা দিক, রাজ্যের কাছে তা কখনই যথেষ্ট নয়। কারণ তাতে রাজ্যের ভাঁড়ার পূর্ণ হলেও, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলের ভাঁড়ার পূর্ণ হয় না। আমফানের বকলমে টাকা আয় করতে চান মুখ্যমন্ত্রী, এমনই অভিযোগ বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের। তাঁর মতে সাইক্লোন আমফান রাজ্যের কাছে টাকা আয় করার একটা হাতিয়ার।

বৃহস্পতিবার এই বিষয়ে বক্তব্য রাখেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন সাইক্লোন আমফানে রাজ্যের ক্ষতি হয়েছে ১ লক্ষ কোটি টাকা। অথচ কেন্দ্রের থেকে সেই টাকার ছিটেফোঁটাও পাওয়া যায়নি। এই বক্তব্যেরই সমালোচনা করেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি।

আগে সিপিএমের এই রোগ ছিল, এখন তৃণমূলের জমানায় সেই রোগ ছড়িয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন দিলীপ ঘোষ। এছাড়াও সাইক্লোনকে জাতীয় বিপর্যয় ঘোষণার মুখ্যমন্ত্রীর দাবিকে কটাক্ষ করেছেন দিলীপ। তিনি বলেন জাতীয় বিপর্যয় বলে কিছু হয় না। রাজ্য সরকার কেন্দ্রকে বলবে কত টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। সেই হিসেব অনুযায়ী কাজ হবে।

এদিন দিলীপ ঘোষের কথায় উঠে আসে পরিযায়ী শ্রমিকদের দুর্দশার প্রসঙ্গ। রাজ্য বিজেপি সভাপতি বলেন যে সব শ্রমিকরা রাজ্যে ফিরে আসেন, তাদের জন্য কোনও সুষ্ঠু ব্যবস্থা করা হয়নি। তাদের খাবার জল নেই, খাবার নেই। অত্যন্ত দুর্দশার মধ্যে বাড়ি ফিরছেন তাঁরা। তাই বিক্ষোভ করছেন।

পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য পঞ্চায়েতগুলির তরফ থেকে কোনও ব্যবস্থা করা হোক বলে পরামর্শ দিয়েছেন দিলীপ ঘোষ। তাঁর দাবি নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের সরবরাহ করুক পঞ্চায়েতগুলি। তবেই বাঁচতে পারবেন শ্রমিকরা। তবে এখানেও সরকারের দুর্নীতির অভিযোগ তুলেছেন দিলীপ। তিনি বলেন রেশন দোকানগুলির দুর্নীতিতে খাবার পাচ্ছেন না সাধারণ মানুষ। এই অভিযোগে অনেকেই গ্রেফতার হয়েছেন।

তৃণমূস সরকারকে অভিযোগে বিদ্ধ করে দিলীপ ঘোষ বলেন, রাজ্য সরকারের হাতে যথেষ্ট টাকা রয়েছে, কিন্তু তৃণমূল কর্মীরা সেই টাকা পকেটস্থ করতেই বেশি ব্যস্ত।

এদিন রাজ্যের শিক্ষা ব্যবস্থার অপরিকল্পিত কর্ম পদ্ধতি নিয়েও মুখ খোলেন দিলীপ। তিনি বলেন রাজ্যের ৭২ শতাংশ স্কুলে ৪জন শিক্ষক নিয়ে কাজ চলছে। ৪২ শতাংশ স্কুলে মাত্র তিনজন করে শিক্ষক রয়েছেন। শিক্ষক নিয়োগেও রাজ্যের গাফিলতি স্পষ্ট বলে এদিন অভিযোগ করেছেন তিনি।

তবে দিলীপ ঘোষের এই বক্তব্যের পর চুপ করে থাকেনি তৃণমূলও। রাজ্য বিজেপি সভাপতির প্রতিটি বক্তব্য অস্বচ্ছ ও ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছে রাজ্যের শাসক দল।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।