কলকাতা: ক্রমশ গতি বাড়াচ্ছে সাইক্লোন বুলবুল। গত কয়েকদিন ধরে বঙ্গোপসাগরের উপর ঘনীভূত হচ্ছে এই সাইক্লোন। শুক্রবার থেকে এই সাইক্লোনের জেরে ওড়িশা ও পশ্চিমবঙ্গের উপকূলে বৃষ্টি শুরু হবে বলে জানা গিয়েছে। এদিন দুপুরে ভয়ঙ্কর সাইক্লোনের আকার ধারণ করবে ‘বুলবুল।’

মৌসম ভবনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, এদিন দুই রাজ্যেই ব্যাপক বৃষ্টি হবে। এরপর শনিবার পর্যন্ত এই ঝড় ক্রমশ উত্তর ও উত্তর-পশ্চিম দিকে এগিয়ে যেতে থাকবে।

আবহাওয়ার আপডেট অনুযায়ী, এখন সাইক্লোন বুলবুলের গতি ১০০-১১০ কিলোমিটার। ক্রমশ ১২০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা বেগ হয়ে যাবে এটির। শুক্রবার দুপুরে এর গতিবেগ হবে ১৩৫ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা। অর্থাৎ এদিনই ভয়ঙ্কর আকার ধরবে এই সাইক্লোন।

আলিপুর আবহাওয়া দফতরের অধিকর্তা গণেশ কুমার দাস জানিয়েছেন, ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ঘন্টায় ১০০ কিলোমিটার বেগে আছড়ে পড়তে পারে৷ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নিম্নচাপটি অবস্থান করছিল কলকাতা থেকে ৭৫০ কিলোমিটার দূরে৷ তবে ঘূর্ণিঝড়টি কোন দিকে তা এখনই নির্দিষ্ট করে বলা যাচ্ছে না৷ যদি তার গতিপথ পরিবর্তন না হয়,তা হলে এ রাজ্যের সুন্দরবনের উপর দিয়ে বাংলাদেশ উপকূলে আছড়ে পড়তে পারে৷ তার ফলে সুন্দরবনে ক্ষয়ক্ষতির হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

ইতিমধ্যেই বুলবুলের প্রভাবে পশ্চিমবঙ্গের উপকূলবর্তী এলাকায় শুরু হয়েছে বৃষ্টিপাত৷ এই অবস্থা জারি থাকবে৷ আগামী ৪৮ ঘণ্টা নিম্নচাপের কবলে পড়তে চলছে প্রাক শীতের বাংলা৷ অন্যদিকে বুলবুলের প্রভাবে বঙ্গোপসাগরের ওপারে বাংলাদেশের উপকূল এলাকায় ফুঁসে উঠেছে সমুদ্র৷ চট্টগ্রাম বন্দর থেকে উপকূলবর্তী সর্বত্র জারি হয়েছে সতর্কতা৷

পশ্চিমবঙ্গ, ওড়িশার মত রাজ্যগুলিকে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্র। এই সংক্রান্ত একটি উচ্চপর্যায়ের বৈঠকও হয়েছে। এরপরই প্রধানমন্ত্রীর প্রধান সচিব পিকে মিশ্র নিশ্চিত করেছেন, যে রাজ্যগুলি যথাযথ ব্যবস্থা নেবে। যাতে সবথেকে কম ক্ষতি হতে পারে, তার জন্য সবরকম ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও এই সাইক্লোন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। এদিন কেন্দ্রের বৈঠকে আবহাওয়ার সব আপডেট জানানো হয়েছে। পুরো পরিস্থিতির উপর নজর রাখা হয়েছে।