ঢাকা ও চট্টগ্রাম: শক্তিতে বুলবুলের থেকেও ফণীর ক্ষমতা বেশি ছিল। তবুও অতটা উদ্বিগ্ন হয়নি বাংলাদেশ। এবার কিন্তু উদ্বেগ বেশি। তাই জারি হল ‘মহাবিপদ’ সতর্কতাবাংলাদেশ আবহাওয়া বিভাগের এই মহাবিপদ সতর্কতার ১১টি পর্যায়। তার মধ্যে ১০টি পর্যায় পার করেছে বুলবুলের শক্তি। শনিবার পেরিয়ে ক্যালেন্ডারের নিরিখে রবিবার ঢুকবে নিয়ম করে।

তার কিছু আগেই মহাবিপদের আশঙ্কা নিয়ে বঙ্গোপসাগর সংলগ্ন বাংলাদেশ উপকূল এলাকায় হামলা চালাবে পাকিস্তানের নাম দেওয়া ঘূর্ণিঝড় বুলবুল । এতে প্রবল আশঙ্কা ছড়িয়েছে চট্টগ্রাম থেকে খুলনা পর্যন্ত উপকূলীয় অঞ্চলে। ১৩টির বেশি জেলার সর্বত্র শুরু হয়েছে দুর্যোগ। আশ্রয় শিবিরে যাচ্ছেন বহু মানুষ। বাংলাদেশ আবহাওয়া বিভাগের সতর্কতার পর বিশেষ নির্দেশ দেয় নৌ পরিবহণ মন্ত্রক। এতে বলা হয়েছে, বুলবুল ঘূর্ণিঝড়ের কারণে নদী ও সমুদ্র বন্দর গুলোতে ১ থেকে ১১ পর্যন্ত সতর্ক সংকেত দেখানো হয়। বঙ্গোপসাগরের উপকূলে থাকা ৯টি জেলায় ১০ নম্বর ‘মহাবিপদ’ সংকেত দেখানো হচ্ছে।

একনজরে মহাবিপদ সতর্কতা

১. এই মহাবিপদ সংকেত মানে তিনটি লাল পতাকা ওড়ানো হয়। ২. এর মানে প্রচণ্ড ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে আবহাওয়া দুর্যোগপূর্ণ থাকবে। ৩. ঘূর্ণিঝড়টি খুব কাছে দিয়ে, অথবা সরাসরি ওপর দিয়ে উপকূল অতিক্রম করতে পারে। ইতিমধ্যেই বুলবুলের প্রভাবে প্রতিবেশী ভারতের ওডিশা ও পশ্চিমবঙ্গের উপকূলের সমুদ্র অশান্ত। কলকাতায় শুরু বর্ষণ। বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ভারি বর্ষণ ও ঝড়ের সতর্কতা জারি।

এই সীমান্ত ,সংলগ্ন বাংলাদেশের খুলনা বিভাগ। সুন্দরবন ছড়িয়ে দুই দেশেই। আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, বুলবুল সবার প্রথমে ধাক্কা মারবে সুন্দরবনে। তারপর তার গতি ঘুরতে থাকবে চট্টগ্রামের দিকে। অতিপ্রবল এই ঘূর্ণিঝড়টি শনিবার সন্ধ্যা নাগাদ ঘণ্টায় দেড়শ কিলোমিটার বেগ নিয়ে সুন্দরবনের উপকূলে আঘাত হানতে পারে।