মুম্বই: প্রথম ম্যাচে দিল্লি ক্যাপিটালসের কাছে হেরে ২০২১ আইপিএলে অভিযান শুরু করেছে চেন্নাই সুপার কিংস৷ স্বভাবতই দ্বিতীয় ম্যাচে পঞ্জাব কিংসের বিরুদ্ধে জিততে মরিয়া ধোনি অ্যান্ড কোং৷ শুক্রবার ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে লোকেশ রাহুলের বিরুদ্ধে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিলেন সিএসকে অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি৷ চেন্নাই সুপার কিংসের জার্সিতে এটি ধোনির ২০০তম ম্যাচ৷

দুই দলই প্রথম ম্যাচের দল অপরিবর্তিত রেখেছে৷ প্রথম ম্যাচে দিল্লি ক্যাপিটালসের বিরুদ্ধে ১৮৮ রান তুলে হেরেছিল চেন্নাই সুপার কিংস৷ দিল্লির দুই ওপেনার শিখর ধাওয়ান পৃথ্বী শ-এর কাছে অসহায় দেখিয়েছিল সুপার কিংস বোলারদের৷ শার্দুল ঠাকুর ও দীপক চাহাররা প্রথম ম্যাচে দাগ কাটতে ব্যর্থ হয়েছিল৷ তবুও প্রথম ম্যাচের দল অপরিবর্তিত রাখে সুপার কিংস৷

অন্য দিকে প্রথম ম্যাচে পঞ্জাব কিংস কোনওক্রমে জিতেছে রাজস্থান রয়্যালস৷ স্কোর বোর্ডে ২২১ রান তুলেও শেষ বলে থ্রিলার ম্যাচ জিতেছে লোকেশ রাহুলের দল৷ রয়্যালস অধিনায়ক সঞ্জু স্যামসনের বিরুদ্ধে অসহায় দেখিয়েছিল পঞ্জাব বোলারদের৷ রাহুলও দ্বিতীয় ম্যাচে তাঁর বোলারদের উপর আস্থা রেখেছে৷ সুপার কিংসের জার্সিতে এদিন ২০০তম ম্যাচ খেলতে নামলেন ধোনি৷ সুপার কিংস ছাড়াও পুণে সুপার জায়েন্টের হয়ে আইপিএল খেলেছেন তিনি৷ তবে ইয়েলো জার্সিতে মাইলস্টোন ম্যাচ জিতে স্মরণীয় করতে রাখতে চান মাহি৷

টস জিতে সুপার কিংস ক্যাপ্টেন ধোনি বলেন, ‘পিচে ঘাস রয়েছে৷ পরের দিকে শিরির পড়তে পারে৷ সুতরাং প্রথম দিকে বোলিং করাটাই শ্রেয়৷ আর পঞ্জাব কিংস ক্যাপ্টেন রাহুল বলেন, ‘শেষ ম্যাচটা আমরা ভালো খেলেছি৷ চেষ্টা করব পিচের সঙ্গে দ্রুত মানিয়ে নিতে৷ ওয়াংখেড়ের প্রতিটি পিচ সাধারণত এক৷’

চেন্নাই সুপার কিংস: রীতুরাজ গায়কোয়াড, ফ্যাফ ডু’প্লেসিস, সুরেশ রায়না, অম্বাতি রায়ডু, মহেন্দ্র সিং ধোনি (ক্যাপ্টেন), রবীন্দ্র জাদেজা, স্যাম কারেন, ডোয়েন ব্র্যাভো, শার্দুল ঠাকুর ও দীপক চাহার৷

পঞ্জাব কিংস: লোকেশ রাহুল (ক্যাপ্টেন), ময়াঙ্ক আগরওয়াল, ক্রিস গেইল, দীপক হুডা, নিকোলাস পুরান, শাহরুখ খান, ঝাই রিচার্ডসন, মরুগান অশ্বিন, রিলে মেরেডিথ, মহম্মদ শামি ও অর্শদীপ সিং৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.