চেন্নাই: অস্বস্তির মধ্যেও কিছুটা হলেও স্বস্তির খবর৷ শনিবার কলকাতা নাইট রাইডার্সের চার ক্রিকেটার নতুন করে কোভিড আক্রান্ত হওয়ার মধ্যে রিপোর্ট নেগেটিভ এল মাইক হাসির৷ তবে এখনই দেশে ফেরা হচ্ছে না চেন্নাই সুপার কিংসের ব্যাটিং কোচের৷ চেন্নাইয়ের হোটেলেই আরও কিছুদিন কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে ধোনিদের ব্যাটিং কোচ তথা প্রাক্তন অজি ব্যাটসম্যানকে৷

চেন্নাই সুপার কিংসের সিইও কাশি বিশ্বনাথন পিটিআই-কে মাইক হাসির কোভিড টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ আসার কথা জানিয়েছেন৷ তবে মালদ্বীপ হয়ে অস্ট্রেলিয়া ফেরার জন্য হাসিকে আরও কয়েকদিন কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে৷ তাঁর দ্বিতীয় টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ এলে তবেই দেশে ফেরার ছাড়পত্র পাবেন প্রাক্তন অজি ব্যাটসম্যান৷

বিশ্বনাথন বলেন, ‘বৃহস্পতিবার এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে দিল্লি থেকে চেন্নাই আনার আগেই হাসির কোভিড টেস্ট করা হয়েছিল৷ সেই রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে৷ ও ভালো রয়েছে৷ প্রধান কোচ স্টিফেন ফ্লেমিং ছাড়া দলের বাকি সদস্যরা বাড়ি ফিরে গিয়েছে৷ রবিবার দেশে ফেরার বিমান ধরবে ফ্লেমিং৷’ গত সোমবার চেন্নাই সুপার কিংসের সঙ্গে যুক্ত তিনজনের কোভিট রিপোর্ট পজিটিভ এসেছিল৷ যাঁর মধ্যে ছিলেন সিএসকে-র সিইও বিশ্বনাথনও৷ এছডা় বাকি দু’জন হলেন দলের বোলিং কোচ লক্ষ্মীপতি বালাজি এবং টিম বাস ক্লিনার৷ সকলেই এখন ভালো রয়েছেন বলে জানান সিএসকে সিইও৷

একাধিক ক্রিকেটারের সংক্রমণের পর মঙ্গলবার সকালে জরুরি ভিত্তিতে মিটিং করে ২০২১ আইপিএলে স্থগিতাদেশ জারি করে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। টুর্নামেন্টের এসওপি মেনে টুর্নামেন্টের অর্ধেকেরও বেশি দল আইসোলেশন এবং কঠোর কোয়ারেন্টাইনে প্রবেশ করতেই হুঁশ ফেরে বোর্ড এবং আইপিএল গভর্নিং বডির। কিন্তু স্থগিতাদেশের পরেও সংক্রমণ জারি রয়েছে। মঙ্গলবারই চেন্নাই সুপার কিংসের বোলিং কোচ হাসির কোভিড টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছিল৷

টুর্নামেন্টে স্থগিতাদেশের পর আইপিএলের তরফ থেকেই প্রাক্তন অজি তারকা ব্যাটসম্যানের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর জানানো হয়েছিল। তবে মাত্র দু’দিনের ব্যবধানে হাসির রিপোর্ট নেগেটিভ আসায় স্বস্তিতে সিএসকে ম্যানেজমেন্ট৷ এদিন অস্ট্রেলিয়ান সংবাদপত্র সিডনি মর্নি হেরার্ল্ড-কে হাসি জানান, ‘আমি বিশ্রামে রয়েছি৷ এখনও আগের থেকে অনেক ভালো আছি৷ সিএসকে আমার জন্য যা করছে, তার জন্য কৃতজ্ঞ৷ এই মহূর্তে ভারতের অবস্থা অত্যন্ত ভয়ানক৷ তবে এর মধ্যেও আমি প্রচুর আশীর্বাদ ও ভালোবাসা পেয়েছি৷ ভারত ও অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট ফ্যানেদের এই বার্তা পাঠানোর জন্য আমি কৃতজ্ঞ৷’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.