নয়াদিল্লি: অক্টোবরে বিশ্বকাপ যোগ্যতা অর্জন পর্বে কাতার ম্যাচ দিয়ে ফের আন্তর্জাতিক অ্যাসাইনমেন্টে ফিরছেন সুনীল ছেত্রীরা। কিন্তু করোনা আবহে সেই ম্যাচে মাঠে নামার আগে প্রস্তুতির সমস্যা জাঁকিয়ে বসেছে ভারতীয় শিবিরে। দেশে করোনার বাড়বাড়ন্ত এখনও গৃহবন্দিই রেখেছে সুনীলদের। সবকিছু স্বাভাবিক হয়ে কবে আউটডোর প্র্যাকটিসে নামা সম্ভব হবে, উত্তর অজানা। তাহলে কী যথাযথ প্রস্তুতি ছাড়াই এশিয়া চ্যাম্পিয়ন কাতারের বিরুদ্ধে বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন পর্বের ফিরতি লেগে নামতে হবে সুনীলদের? আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন অনেকেই।

এমন সময় সুনীল ছেত্রী অ্যান্ড কোম্পানির মুশকিল আসান হয়ে উঠতে পারে জাতীয় দলের কোচ ইগর স্টিম্যাচের দেশ ক্রোয়েশিয়া। অক্টোবর-নভেম্বরে কাতার, বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তান ম্যাচের আগে ক্রোয়েশিয়ার মাটিতে অনুষ্ঠিত হতে পারে সুনীলদের প্রস্তুতি শিবির। গোল ডট কমের খবর অনুযায়ী এই মর্মে ক্রোয়েশিয়া ফুটবল ফেডারেশনের প্রেসিডেন্ট দাভর সুকেরকে একটি খোলা চিঠি লিখেছে অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি প্রফুল প্যাটেল। অক্টোবর-নভেম্বরে বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন পর্বের বাকি ম্যাচগুলোর আগে সেদেশে জাতীয় দলের প্রস্তুতি শিবির করতে চেয়ে আবেদন জানিয়েছেন প্যাটেল।

করোনার জেরে আন্তর্জাতিক বিমান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা বহাল রয়েছে এখনও। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলে কোচ স্টিম্যাচের দেশেই অনুষ্ঠিত হতে পারে সুনীলদের প্রস্তুতি শিবির। প্রয়োজনে সেদেশে গিয়ে ফ্রেন্ডলি ম্যাচের মধ্যে দিয়েও নিজেদের ঝালিয়ে নিতে পারে ‘মেন ইন ব্লু’। অক্টোবরে ভুবনেশ্বরে যেহেতু কাতারের বিরুদ্ধে মাঠে নামবে ভারতীয় দল সেহেতু ওডিশার মাটিতেই সুনীলদের প্রস্তুতি শিবির করার চেষ্টায় ফেডারেশন। কিন্তু দেশের করোনা পরিস্থিতি এখনও খুব একটা আশার আলো দেখাচ্ছে না। তার উপর রাজ্য সরকারের গাইডলাইন মেনেই সবকিছু ব্যবস্থা করতে হবে।

সেদিক থেকে ক্রোয়েশিয়া কিছুটা নিরাপদ। বহিরাগতদের জন্য সেলফ-আইসোলেশন আর বাধ্যতামূলক নয় সেদেশে। পাশাপাশি কোয়ারেন্টাইন বিধিনিষেধেও মিলেছে ছাড়। অন্যদিকে এদেশে এখনও বহিরাগতদের প্রবেশের উপর ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক রয়েছে। তাই কোনওভাবে ক্রোয়েশিয়ায় ভারতীয় ফুটবল দলের প্রস্তুতি শিবির অনুষ্ঠিত হলে দু’দেশের তরফে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়, এখন সেটাই দেখার।

আগামী ৮ অক্টোবর ভুবনেশ্বরে কাতারের পর ১২ নভেম্বর বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অ্যাওয়ে ম্যাচ খেলবেন সুনীলরা। এরপর ১৭ নভেম্বর কলকাতায় আফগানিস্তানের মুখোমুখি হবে মেন ইন ব্লু। বিশ্বকাপের আশা শেষ হলেও ২০২৩ এশিয়ান কাপে যোগ্যতা নির্ণয়ের দৌড়ে এখনও রয়েছেন সুনীলরা। আর এই ম্যাচগুলি যেহেতু একইসঙ্গে এশিয়ান কাপে যোগ্যতা অর্জনের জন্যও সমান গুরুত্বপূর্ণ তাই সাবধানী স্টিম্যাচ।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ