স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: তাঁকে অন্ধকারে রেখে বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তা জল বণ্টন চুক্তি করতে চলেছে কেন্দ্রীর মোদী সরকার৷ একাধিকবার এই অভিযোগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও তাঁর সরকারের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ শুক্রবার রাজ্য বিজেপি দফতরে জনতার দরবারে যোগ দিতে এসে মুখ্যমন্ত্রীকে জবাব দিলেন কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়৷ তিনি আশ্বাস দিয়েছেন যে, রাজ্যকে না জানিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তা জল বণ্টন চুক্তি স্বাক্ষর করবে না কেন্দ্র৷ রাজ্যের মতামত নিয়েই চুক্তি হবে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন আসানসোলের সাংসদ৷

কিছুদিন আগেই একটি বেসরকারি সংবাদমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দাবি করেছিলেন যে, তাঁর কাছে খবর রয়েছে আগামী ২৫ মে বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তা জল বণ্টন চুক্তি স্বাক্ষর করবে ভারত৷ কিন্তু কেন্দ্রের মোদী সরকারের পক্ষ থেকে তাঁকে কোনও বিষয়ে জানান হয়নি৷ এমনকি কেন্দ্রের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ তুলে লোকসভাতেও কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদরা৷ কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তাঁর দলের এই অভিযোগ সম্পূর্ণ উড়িয়ে দিয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়৷

শুক্রবার রাজ্য বিজেপি দফতরে জনতার দরবারে যোগ দিতে এসেছিলেন বাবুল সুপ্রিয়৷ সেখানে এসে সাধারণ মানুষের বিভিন্ন অভাব অভিযোগের কথা শোনেন তিনি৷ প্রয়োজন মতো ব্যবস্থা গ্রহণেরও আশ্বাস দিয়েছেন কেন্দ্রীয় এই নেতা৷ আগামী ৭ এপ্রিল ভারত সফরে আসছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ তাঁর সফর সঙ্গী হয়েছেন বাবুল সুপ্রিয়৷ বাংলা যোগের জন্যই বাবুলকে হাসিনার সফর সঙ্গী হওয়ার দায়িত্ব সঁপেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, এমনই মনে করছে রাজনৈতিক মহল৷ জানা গিয়েছে যে, হাসিনার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বৈঠকে উঠতে পারে একাধিক বিষয়৷ থাকতে পারে দু’দেশের অর্থনৈতির, সামাজিক পারস্পরিক সম্পর্কের বিষয়৷ স্থান পেতে পারে সীমান্ত সমস্যা থেকে অনুপ্রবেশ৷ তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু হয়ে উঠতে পারে তিস্তা সংক্রান্ত কথাবার্তা৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ