ভোপাল: পেট্রোজাত পণ্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির কারণে দেশজুড়ে নাভিশ্বাস আমজনতার। পেট্রোল, ডিজেলের পাশাপাশি প্রাত্যহিক দাম বেড়ে চলেছে রান্নার গ্যাসেরও। স্বাভাবিকভাবেই আগুন লেগেছে মধ্যবিত্তের হেঁশেলে। বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি এ নিয়ে বারংবার সোচ্চার হলেও পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার কোনও লক্ষ্মণ নেই। এমন সময় ঘটনার অভিনব প্রতিবাদ প্রকাশ পেল ক্রিকেট মাঠে।

পেট্রোজাত পণ্যের লাগামছাড়া মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদস্বরূপ একটি ক্রিকেট টুর্নামেন্টে ম্যাচ সেরার পুরস্কার হিসেবে দেওয়া হল ৫ লিটার পেট্রোল। মধ্যপ্রদেশের ভোপালে স্থানীয় একটি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ঘটনা এটি। মজার ছলে হলেও সাম্প্রতিক সময়ে দেশের সবচেয়ে স্পর্শকাতর ইস্যুর বিরুদ্ধে এভাবে প্রতিবাদ প্রকাশ করে নেটাগরিকদের মন জিতে নিয়েছেন উদ্যোক্তারা। গত রবিবার ভোপালে ওই ক্রিকেট টুর্নামেন্টটি আয়োজন হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

এই মুহূর্তে দেশের রাজধানী শহর নয়াদিল্লিতে মহার্ঘ্য এক লিটার পেট্রোল কিনলে ক্রেতাকে দিতে হচ্ছে ৯১.১৭ টাকা। বাণিজ্য রাজধানী মুম্বইয়ে সেটা আবার ৯৭.৫৭ টাকা। সবমিলিয়ে ঘটনার প্রতিবাদে ভোপালের ওই ক্রিকেট টুর্নামেন্টের একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে নেটদুনিয়ায়। যেখানে দেখা যাচ্ছে এক ম্যাচ সেরা ক্রিকেটারের হাতে ৫ লিটার পেট্রোল তুলে দিচ্ছেন আয়োজকরা। সেই ছবির পরিপ্রেক্ষিতে নেটাগরিকদের পালটা মজার সব মন্তব্য ভাইরাল হয়েছে নেটদুনিয়ায়।

এক নেটিজেন লিখেছেন, ‘তাহলে কী টুর্নামেন্ট সেরাকে একটি গ্যাস সিলিন্ডার দেওয়া হয়েছে উপহার হিসেবে?’ আবার কেউ লিখেছেন, ‘ম্যান অফ দ্য ম্যাচকে পাঁচ লিটার পেট্রোল। অভিনব চিন্তাভাবনা। সত্যিই আজকের দিনে মহার্ঘ্য।’ এই ঘটনা নজর এড়ায়নি জনপ্রিয় ক্রিকেট ধারাভাষ্যকার এবং বিশ্লেষক হর্ষ ভোগলের। তিনিও খবরটি নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে শেয়ার করেছেন এবং লিখেছেন, ‘খবরে পড়ছিলাম ভোপালে একটি ক্রিকেট টুর্নামেন্টে নাকি ম্যাচ সেরার পুরস্কার হিসেবে পাঁচ লিটার করে পেট্রোল দেওয়া হয়েছে। সত্যিই এই সময় দাঁড়িয়ে ভীষণ প্রয়োজনীয় উপহার।’

গত চারদিন ধরে যদিও দেশের মেট্রোপলিটন শহরগুলোতে অপরিবর্তিত রয়েছে পেট্রোলের দাম। তবে ইন্ডিয়ান অয়েল জানিয়েছে রাজস্থানে পেট্রোলের দাম লিটারপিছু ১০০ ছাড়িয়ে গিয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।