মেলবোর্ন: ২০২০ টি-২০ বিশ্বকাপ নিয়ে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত নেয়নি আইসিসি৷ তবে করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে চলতি বছরে বিশ্বকাপ আয়োজন কার্যত অসম্ভব বলে জানাল ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া৷ ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার এ হেন মন্তব্যের পর ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের সামনে আইপিএলের ত্রয়োদশ সংস্করণে আয়োজনের রাস্তা খুলে গেল বলে মনে করছেন অনেকেই। বিশ্বকাপ না-হলে সেই উইন্ডোতে আইপিএল আয়োজন করতে পারবে বিসিসিআই।

তবে টি-২০ বিশ্বকাপের ভাগ্য এখন ঝুলছে আইসিসি-র হাতে৷ অস্ট্রেলিয়ায় না-হলেও অন্য দেশে বিশ্বকাপ আয়োজনের সম্ভাবনা থেকেই যাচ্ছে৷ আগামী মাসে আইসিসি-র বৈঠকে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আর্ন্তজাতিক ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থার সেই মিটিংয়ের আগে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার মন্তব্য কিন্তু তাৎপর্যপূর্ণ।

সোমবার এই মন্তব্যের পর ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সিইও-র পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় কেভিন রবার্টসকে। চুক্তির ১৮ মাস আগেই রবার্টসকে সরিয়ে দেওয়ার পর বিশ্বকাপ আয়োজক কমিটির প্রধান কার্যনির্বাহী নিক হকলিকে এই পদে আনা হয়েছে। তবে আপাতত অজি ক্রিকেট বোর্ডর চেয়ারম্যান আর্ল এডিংস জানিয়ে দেন, তিনিই আপাতত অন্তর্বর্তীকালীন সিইও-র দায়িত্ব সামলাবেন।

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার চেয়ারম্যান কার্ল এডিংস বলেন, ‘এখনও পর্যন্ত সরকারিভাবে টি-২০ বিশ্বকাপ পিছিয়ে দেওয়া হয়নি বা স্থগিত করা হয়নি ঠিকই। কিন্তু ১৬টি দেশকে নিয়ে অস্ট্রেলিয়ায় চলতি বছর টি-২০ বিশ্বকাপ করা অবাস্তব বলেই মনে হচ্ছে।’

করোনা অতিমারীর কারণে সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়ায় খেলাধূলোও আপাতত শিকেয়। এর জন্যই প্রবল আর্থিক ক্ষতির মুখে ক্রিকেটও৷ সেই কারণেই তিন ক্রীড়া সংস্থার সিইও-কে বদলে ফেলা হল। টি-২০ বিশ্বকাপ আয়োজন করার বদলে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া আপাতত ভারত সফর আয়োজন করতে মরিয়া। এই সিরিজ থেকে সম্প্রচার বাবদ বেশ কিছু অর্থ পকেটে ঢুকবে দু’দেশের ক্রিকেট বোর্ড।

অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট মরশুম সেই অর্থে কোনও কাটছাঁট না-হলেও আর্থিক ক্ষতির মুখে সিএ। তাই ক্রিকেটার থেকে সংস্থার কর্মীদের বেতন কমানো হয়েছে। চলতি বছরেই অক্টোবর-নভেম্বরে টি-২০ বিশ্বকাপের আয়োজন করার কথা ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার। তবে বর্তমান পরিস্থিতিতে তা কার্যত সম্ভব নয় বলেই মনে করছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া।

ভিডিও কনফারেন্সে এডিংস জানান, ‘বিশ্বকাপ আয়োজন কার্যত অসম্ভব। যে সমস্ত দেশ করোনার বিরুদ্ধে লড়ছে সেই ১৬ দেশ থেকে ক্রিকেটারদের নিয়ে টুর্নামেন্ট আয়োজন করা অক প্রকার অবাস্তব৷’ তবে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার পক্ষ থেকে আইসিসি-কে বিকল্প বিষয়ের ব্যাপারেও জানানো হয়েছে। আগামী মাসেই আইসিসি এই ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে৷

বিশ্বকাপ না-হলে আইপিএলের দরজা খুলে যাবে৷ ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় দর্শকশূন্য মাঠেই আইপিএল চালু করার ইঙ্গিত দিয়েছেন৷ দেশের সব ক্রিকেট সংস্থার কাছে তিনি এই মর্মে চিঠিও পাঠিয়েছেন।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ