কলকাতা: গত বছরের শেষের দিকে দক্ষিণেশ্বরে স্কাইওয়াকের উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর ছ’ মাস কাটতে না কাটতেই ফাটল সেই স্কাইওয়াকে।

বুধবার দুপুরে ওই ফাটল চোখে পড়ে। জায়গাটি ব্যারিকেড করে ঘিরে রাখা হয়েছে। একদিক দিয়ে যাতায়াত বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

প্রত্যেক দিন ওই স্কাইওয়াকের উপর দিয়ে বহু মানুষ দক্ষিণেশ্বরের ভবতারিণী মন্দির দর্শনে যান ও ফেরেন। এছাড়া স্কাইওয়াকের মাঝ বরাবর রয়েছে একাধিক দোকানও।

২০১৮-র নভেম্বরে স্কাইওয়াকের উদ্বোধন করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই স্কাইওয়াকের মাধ্যমে মানুষ সরাসরি মন্দিরে চলে যেতে পারেন। ট্রেন থেকে স্টেশনে নেমে সরাসরি স্কাইওয়াকে চলে যাওয়া যায়। যানজট এড়িয়ে নির্বিঘ্নে মন্দিরে যাওয়ার জন্যই এই ব্যবস্থা করা হয়।

প্রায় তিন বছর আগে মুখ্যমন্ত্রী এসে এই প্রকল্পের শিলান্যাস করে গিয়েছিলেন।

৩৪০ মিটার লম্বা এবং ৩.৫ মিটার চওড়া নবগঠিত স্কাইওয়াকে রয়েছে ১৪টি এস্কেলেটর৷ ১২টি দরজা৷ বয়স্কদের জন্য বন্দোবস্ত রয়েছে ৪টি লিফটের৷ গোটা স্কাইওয়াক জুড়ে সাউন্ড সিস্টেম রয়েছে। সেখানে গান বাজানো হয়৷ রয়েছে রামকৃষ্ণ দেবের ছবি।

২০১৫ থেকে শুরু হয় স্কাইওয়াকে’র কাজ৷ প্রকল্প এলাকায় বহু দোকান থাকায় তাদের পুনর্বাসন ঘিরে তৈরি হয় জটিলতা৷ পরে রাজ্য সরকার ঘোষণা করে স্কাইওয়াকে তাদের পুনর্বাসন দেওয়া হবে৷

এই স্কাইওয়াক নির্মাণে খরচ হয়েছে ৬৫ কোটি টাকা৷ কেএমডিএ’র তত্ত্বাবধানে তৈরি হয়েছিল সেই স্কাইওয়াক। উদ্বোধনের পরই পানের পিক ফেলার ছবি প্রকাশ্যে আসতেই তৈরি হয় বিতর্ক। এবার ফাটলের ছবি সামনে এল।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ