ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: সিবিএসই-র প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদী সরকারকে কড়া সমালোচনা করল সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটি৷ গত ৩০ মার্চ কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক শুরু হয়েছে৷ ওই বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়৷

সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটির বক্তব্য, বিজেপির শাসনে বিভিন্ন রাজ্যে বড় বড় কেলেঙ্কারি ঘটছে৷ এর আগেও ব্যাপম কিংবা এসএসসি কেলেঙ্কারি ঘটেছে বিজেপি শাসিত রাজ্যে৷ এ বার কেন্দ্রে বিজেপি সরকার থাকাকালীন সিবিএসইর প্রশ্ন ফাঁসের কেলেঙ্কারি জানাজানি হয়েছে৷

একই সঙ্গে সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটির বক্তব্য, প্রায় ১৬ লক্ষ ৩৮ হাজার ছাত্র-ছাত্রীর ভবিষ্যৎ প্রশ্নের মুখে৷ সকলেই দশম শ্রেণিতে পড়ে৷ দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রীদের ধরলে সংখ্যাটা আরও ৮ লক্ষ বাড়বে৷ সিবিএসই কর্তৃপক্ষ প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা স্বীকার করে নিয়েছে৷ সরকারের কাছে প্রশ্ন, বহু বছর ধরে সিপিএসইর শীর্ষপদ খালি ছিল কেন?

২০১৭-র সেপ্টেম্বর মাসে গুজরাত থেকে একজন সিইওকে নিয়োগ করা হয়৷ সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটির এক সদস্যের কথায়, ‘‘ছাত্র-ছাত্রীরা এই কেলেঙ্কারির ফলে বিপদে পড়েছে৷ বিজেপি সরকারকে দায়িত্ব নিতে হবে৷ আমরা অভিযুক্তদের কড়া শাস্তির দাবি জানাচ্ছি৷’’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.