তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: অনেক দিন পর এক সময়ের ‘লাল দূর্গ’ হিসেবে পরিচিত জঙ্গল মহলে লাল ঝাণ্ডার দীর্ঘ মিছিল দেখলেন মানুষ। বৃহস্পতিবার বাঁকুড়ার রানীবাঁধের ঝিলিমিলি ও তিলাবনী এলাকায় সিপিএম প্রার্থী অমিয় পাত্রের সমর্থণে পথ হাঁটলেন হাজারো দলীয় কর্মী সমর্থক।

এদিন সকাল থেকে তীব্র তাপপ্রবাহ উপেক্ষা করে দলের জেলা সম্পাদক অজিত পতিকে সঙ্গে নিয়ে পায়ে হেঁটে ঝিলিমিলি-তিলাবনী এলাকায় একের পর এক গ্রাম চষে বেড়ালেন সিপিএম প্রার্থী অমিয় পাত্র। সময় যতো গড়িয়েছে সেই মিছিল ততোই দীর্ঘ হয়েছে।

আরও পড়ুন- কংগ্রেস-বিজেপি আঁতাঁত’, মৌসমের দলবদলের কারণ ব্যাখ্যা মমতার

এদিনের মিছিলে স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত মানুষ সিপিএম প্রার্থী অমিয় পাত্রকে ‘বিপুল ভোটে’ জেতানোর আবেদনের পাশাপাশি অলচিকি মাধ্যমে এখনো কেন শিক্ষক নিয়োগ হয়নি কেন সে বিষয়েও প্রশ্ন তোলেন। অনেক দিন পর এক সময়ের মাও অধ্যুষিত এই এলাকার মানুষের লাল ঝাণ্ডার মিছিলে স্বতঃস্ফূর্ত অংশ গ্রহণ দেখে উজ্জীবিত বাম নেতৃত্ব।

সিপিএম প্রার্থী অমিয় পাত্র এদিনও এই এলাকায় এক সময়ের মাওবাদী কার্যকলাপের সমালোচনা করে বলেন, সেই সময় যারা মুখে গামছা বেঁধে অশান্তি, খুন আর অপহরণের ঘটনায় যুক্ত ছিল, পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে তারাই আজ মুখের গামছা খুলে ফেলে তৃণমূলের দলে নাম লিখিয়েছে।

প্রধান প্রতিদ্বন্দী তৃণমূল প্রার্থী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের নাম না করে অমিয় পাত্র বলেন, ‘নারদা বাবুকে’ ভোট দিয়ে জেতানো মানে বাঁকুড়া লোকসভা এলাকার মানুষের হেরে যাওয়া। জনগণকে জিততে হবে, বাংলায় গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হবে, স্কুলে স্কুলে অরাজকতা বন্ধ করতে হবে। এখন কলেজে ভরতি হতে বা অনার্স পেতে গেলে টাকা লাগছে। আগে এই জিনিস ছিল না।’

এই বারের মাধ্যমিক পরীক্ষায় সাত দিনই প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়’ অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, কোন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে আমরা চলেছি, তা সাধারণ জনগণের ভাবার সময় এসেছে বলেও এদিন তিনি দাবী করেন।

আরও পড়ুন- গণতন্ত্র উদ্ধার করতে বিমান হাইজ্যাক হয়েছিল বিশ্বের একমাত্র হিন্দুরাষ্ট্রে