স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ফের বাম-কংগ্রেস আসন সমঝোতার সম্ভাবনা উড়িয়ে না দিচ্ছেন না প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র। তবে আসন সমঝোতার পথে সিপিএম ছাড়া বাকি বাম শরিকদের গুরুত্ব দিতে রাজি নন প্রদেশ সভাপতি। কলকাতা প্রেস ক্লাব আয়োজিত সাংবাদিক বৈঠকে সোমেন বলেন, “বামফ্রন্টের মাথা তো সিপিএম। সিপিএম বাকিদের বোঝাবে। বাকি বাম শরিকদের নিয়ে আমরা চিন্তা করি না।”

লোকসভা নির্বাচনের আগে বাম-কংগ্রেসের আসন সমঝোতা নিয়ে কম জলঘোলা হয় নি। বুধবার সোমেন নিজেই জানান, “১৫ দিন সময় নষ্ট হয়েছে। শেষ পর্যন্ত হয়নি। হলে ভালো হতো।” তবে, সিপিএম নয়, অন্য বাম শরিকরা মন থেকে কংগ্রেসের সঙ্গে আসন সমঝোতা চায়নি – তা এখন দিনের আলোর মতো পরিষ্কার হয়ে গিয়েছে।

সিপিআই আসন সমঝোতার পক্ষে থাকলেও আরএসপি ছিল নিমরাজি। ফরওয়ার্ড ব্লক পুরোপুরি আসন সমঝোতার বিরুধ্যে ছিল। কংগ্রেসের সঙ্গে আসন সমঝোতা নিয়ে বামফ্রন্টের মধ্যে মতবিরোধ যখন তুঙ্গে, ফরওয়ার্ড ব্লক রাজ্যের ৪২টি আসনে প্রার্থী দেওয়ার অঙ্গীকার করেছিল। শেষ পর্যন্ত যদিও তা হয়নি।

সিপিআই, আরএসপি, ফরওয়ার্ড ব্লক – তিন বাম শরিককে তিনটি করে আসন ছাড়ে সিপিএম। আরএসপি বহরমপুর আসনটিতে প্রথমে প্রার্থী না দিলেও পরে ফ্রন্টের সিদ্ধান্তের বিপরীতে গিয়েই প্রার্থী দেয়। যে নয়টি আসনে সিপিএম ছাড়া বাম শরিকরা লড়াই করছেন সেখানে কংগ্রেস প্রার্থী দিয়েছে। সিপিএমের সঙ্গে কংগ্রেসের যতটা বন্ধুত্ব হয়েছে, অনন্য বাম শরিকদের সঙ্গে দূরত্ব ততই বেড়েছে।

বিষয়টি নিয়ে সোমেনের সাফ জবাব, ‘‘বামফ্রন্টের সব থেকে বড় দল সিপিএম৷ ওদের সঙ্গেই কথা বলি আমরা৷ অন্য বাম শরিকরা কী বলল, আমার জানার কথা নয়৷ বামফ্রন্টের মাথা সিপিএম৷ ওরা কী বলল সেটাই দেখবো৷ বাকিরা কী বলছে, তা সিপিএম দেখবে৷’’

আসন্ন ৬টি বিধানসভা উপনির্বাচনে বাং-কংগ্রেস আসন সমঝোতার সম্ভাবনা রয়েছে বলে মন্তব্য করেন সোমেন৷ তিনি জানান, বামফ্রন্ট যদি চায় তবে আমরা অবশ্যই কথা বলব৷ রাজনীতিতে কখনও স্থানী বন্ধু বা শত্রু থাকে না৷ লোকসভা নির্বাচনের আগে আসন সমঝোতা হয়নি৷ কারণ ওরা (বামফ্রন্ট) শর্ত মানেনি৷ আমাদের সঙ্গে আলোচনা শেষ হরওয়ার আগেই ২৫ জন প্রার্থীর নাম ঘোষণা করে দেয়৷