কলকাতা : রাজ্য সরকারের গঠিত বিশেষজ্ঞ কমিটি বৃহস্পতিবার জানিয়েছে মৃতের সংখ্যা ৭, কিন্তু তার কয়েক ঘন্টা পরই বিশেষজ্ঞ কমিটির ওই তথ্য খারিজ করে দেয় সরকার। এবং মুখ্যসচিব ঘোষণা করেন করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা ৭ নয় ৩। এরপরই রাজ্য সরকারের সমালোচনা করে শাসক বিরোধী দলগুলো। একই সুরে রাজ্য সরকারকে কটাক্ষ করে বাম-বিজেপি। অভিযোগ, ডেঙ্গির মত করোনায় মৃতের সংখ্যাও ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে মমতা সরকার।

বৃহস্পতিবারই এক টুইট বার্তায় সিপিএমের রাজ্য সম্পাদকের মন্তব্য, করোনা ভাইরাস জনিত মৃত্যু হয়। নিউমোনিয়া,কিডনি ফেলের জন্য।এটা উল্টে দিলে বিপদ! মৃত্যুর কারণ চিকিৎসক লেখেন। মুখ্যমন্ত্রী নয়। সেটা বেআইনি হস্তক্ষেপ।রোগ চেপে রাখলে আরো বাড়ে। আগেই বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছিলেন, মৃতের সংখ্যা থেকে শুরু করে মৃত ব্যক্তির করোনা সংক্রমণের কথা অস্বীকার করছে সরকার। তাঁর আরও অভিযোগ, করোনা সংক্রমণ হওয়া সত্ত্বেও অনেককে রাখা হচ্ছে জেনারেল বেডে। হচ্ছে না ঠিকমতো পরীক্ষাও। গোটা দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে।

অন্যান্য রাজ্য থেকে কম হলেও পশ্চিমবঙ্গের সংখ্যা নেহাত কম নয়। এক ধাক্কায় অনেকটাই বেড়েছে আক্রান্তের সংখ্যা। তবে এবার সেই সংখ্যা নিয়ে তৈরি হল নতুন দ্বন্দ্ব। রাজ্যের বিশেষজ্ঞদের একটি কমিটি তৈরি করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে সেই কমিটির রিপোর্টে বলা হয় গত ২৪ ঘন্টায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৩। আর ২৪ ঘন্টায় নতুন করে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে চারজনের। সবমিলিয়ে মৃতের সংখ্যা ৭। কিন্তু এই রিপোর্ট প্রকাশ হওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই নতুন তথ্য দিলেন রাজ্যের মুখ্যসচিব।

বিশেষজ্ঞদের কমিটির সেই রিপোর্ট নস্যাৎ করে মুখ্যসচিবের দাবি আসলে রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা অনেকটাই কম। সাতজনের মৃত্যু করোনা আক্রান্ত হয়ে হয়নি বলেও উল্লেখ করেছেন তিনি। নবান্ন থেকে রাজ্যের মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা বলেন, রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫৩ নয়, ৩৪। অর্থাৎ এই মুহূর্তে ৩৪ জনের শরীরে সংক্রমণ পাওয়া গিয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

অন্যদিকে মৃতের সংখ্যাও সাত নয় বলে জানিয়ে ব্যাখ্যা করেছেন রাজীব সিনহা। তিনি বলেন, অন্যান্য প্রাণঘাতী অসুখ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন তাঁরা। এই সাতজনের মধ্যে কেবল মাত্র তিনজনের মৃত্যু করোনাভাইরাস হয়েছে বলে উল্লেখ করা হচ্ছে। বাকিদের মৃত্যু অন্য কোনও অসুখে হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। তাদের মৃত্যুর সঙ্গে করোনার কোনও সম্পর্ক নেই বলেই দাবি মুখ্য সচিবের।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।