তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: কৃষি বিল প্রত্যাহার, জাতীয় শিক্ষা নীতি-২০২০ বাতিল, সমস্ত মানুষের জন্য ডিজিটাল রেশন কার্ড,রাষ্ট্রায়ত্ব সংস্থা গুলির বেসরকারীকরণের সিদ্ধান্ত সহ ১৬ দফা মূল দাবি ও ৪ দফা আঞ্চলিক দাবি নিয়ে বাঁকুড়া জেলাজুড়ে তীব্র গণ আন্দোলন শুরু করলো বামেরা।

সোমবার সপ্তাহের প্রথম কাজের দিনে জেলার ৩ টি মহকুমা ও ২২ টি ব্লক ছিল কার্যত লাল ঝাণ্ডার দখলে। প্রতিটি ব্লক সদরে আলাদা আলাদা মিছিল, পথসভার পাশাপাশি ব্লক প্রশাসনকে সর্বমোট ২০ দফা দাবিতে ডেপুটেশন দেন সিপিএম তথা বাম নেতৃত্ব।

বড়জোড়ায় ডেপুটেশন ও মিছিলে নেতৃত্ব দেন বাম পরিষদীয় দলনেতা ডঃ সুজন চক্রবর্ত্তী। তিনি সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জঙ্গী কার্যকলাপ নিয়ে রাজ্য সরকারকে এক হাত নেন।

রাজ্য সভায় কৃষি বিল পাশ ও একাধিক সাংসদকে বহিস্কার প্রসঙ্গে সুজন চক্রবর্ত্তী বলেন, সংখ্যাগরিষ্ঠতা নেই জেনেই সংসদের আইন কানুন বাতিল করে সর্বনাশা কৃষি বিল ধ্বণী ভোটে পাশ করিয়ে নিয়েছে। প্রতিবাদী সাংসদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া ঠিক হয়নি। লোকসভায় কংগ্রেস দলনেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরীর বক্তব্যকে সমর্থণ জানিয়ে তিনি আরও বলেন, লোকসভা ও রাজ্যসভায় তৃণমূলের দু’রকম মনোভাব মানুষ ভালোভাবে দেখছেনা।

বড়জোড়ার পাশাপাশি জেলার ইন্দাস, পাত্রসায়র, কোতুলপুর, জয়পুর, বিষ্ণুপুর থেকে জেলার দক্ষিণের তালডাংরা, সিমলাপাল, খাতড়া সহ প্রতিটি ব্লক এলাকাতেই একই দাবীতে ব্লক ডেপুটেশনে অংশ নেন বাম নেতা কর্মীরা।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।