কলকাতা: গতকালই আসন্ন বিধানসভা ভোটে নন্দীগ্রাম থেকে দাঁড়ানোর ইচ্ছাপ্রকাশ করেছেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূল সুপ্রিমোর সেই ইচ্ছাপ্রকাশকেই বিঁধলেন বাম পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তী। টুইটে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করে সুজন লিখেছেন, ‘‘নন্দীগ্রামে মাননীয়া কি স্ব-পরাজয় ঘোষণা করলেন? ঈঙ্গিত কি?।’’

দীর্ঘদিন পর সোমবার নন্দীগ্রামে পা রাখেন নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বেশ কিছুটা আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন তিনি। তৃণমূল সুপ্রিমো জানান, নন্দীগ্রামের সঙ্গে তাঁর আত্মার টান। তাই নিজের উত্থানস্থল থেকেই একুশের লড়াইয়ে নামতে চান তিনি। মমতা জানান, নন্দীগ্রামে তাঁর কাছে লাকি! কারণ গত বিধানসভা ভোটে নন্দীগ্রামে দাঁড়িয়েই প্রথম ভোটের বাদ্যি বাজিয়ছিলেন। জিতেওছিলেন। আর তাই এবারও নন্দীগ্রাম থেকেই ভোটের প্রার্থী হবেন বলে ঘোষণা করেন তৃণমূলনেত্রী।

মুখ্যমন্ত্রী গতকাল বলেন, “এবার নন্দীগ্রামে এমন কাউকে প্রার্থী করব ভাবছি, যে আপনাদের কাছে পড়ে থেকে আপনাদের কাজ করবে। ভাল কাউকেই প্রার্থী করব। ভাবছিলাম, আমি নিজেই যদি দাঁড়াই তাহলে কেমন হয়?’’এরপরই স্পষ্ট করে মমতা জানিয়ে দেন,”আমি আমার দলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সীকে বলব নন্দীগ্রাম থেকে প্রার্থী হিসেবে যেন আমার নামটা রাখা হয়। আমি নন্দীগ্রামের মানুষের মধ্যে থেকে আপনাদের জন্য কাজ করতে চাই।”

এদিকে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন্দীগ্রাম থেকে ভোটে দাঁড়াবেন শুনে টুইটে তাঁকে বিঁধে মন্তব্য করেছেন বাম পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তী। টুইটে সুজন চক্রবর্তী লিখেছেন, ‘‘নন্দীগ্রামে মাননীয়া কি স্ব-পরাজয় ঘোষণা করলেন? ঈঙ্গিত কি? ২৯৪ আসনেরই প্রার্থী যিনি, সব ফেলে তিনি শুধু নিজেরটাই ঘোষণা করলেন! একা দুই আসনের প্রার্থী! কিসের ভয়ে?’’

এরই পাশাপাশি তৃণমূলনেত্রীকে আবারও শিল্প-বিরোধী বলে তোপ দেগেছেন সিপিএম বিধায়ক সুজন। এপ্রসঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমালোচনা করে তিনি ঈআরও লিখেছেন, ‘‘রাজ্যটাকে ধ্বংস করে এখন সিঙ্গুর, নন্দীগ্রামে শিল্পের কথা! ক্ষমা চান মানুষের কাছে। আর পার পাবেন না কিন্তু, মাননীয়া।।’’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।