নয়াদিল্লি: করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়েছে গোটা দেশে। হুহু করে বাড়ছে সংক্রমণ। দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ইতিমধ্যে ২ লক্ষ পার করেছে। যা রীতিমতন চিন্তায় ফেলেছে প্রশাসনকে। ভয়াবহ পরিস্থিতিকে সামাল দিতে কয়েকটি রাজ্য সরকার আংশিক বিধিনিষেধ, সপ্তাহান্তে লকডাউন এবং নাইট কারফিউ-এর মত পদক্ষেপ নিয়েছে।

সপ্তাহান্তে কারফিউ জারি হয়েছে এমন রাজ্য এবং শহরগুলির তালিকা দেখে নিন এক নজরে

১.দিল্লি: দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী এবং AAP সুপ্রিমো অরবিন্দ কেজরিওয়াল কোভিড-১৯ এর সংক্রমণের রাশ টানতে দিল্লিতে সপ্তাহান্তে কারফিউ জারি করেছেন। শনি ও রবিবার রাত ১০ থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত জারি থাকবে কারফিউ । পাশাপাশি, বন্ধ করে দেওয়া হবে স্পা, জিম, শপিং মল। শুধুমাত্র জরুরি পরিষেবায় ছাড় দেওয়া হয়েছে। ১৭ তারিখ থেকে কার্যকর হয়েছে এই নয়া নিয়ম। সিনেমা হল খোলা থাকলেও ৩০ শতাংশ দর্শকের প্রবেশাধিকারে ছাড়, একটি জোনে একদিনে একটাই রেস্তরাঁ খোলা থাকবে। তবে সেখানে বসে খাওয়া যাবে না। শুধুই অনলাইন ডেলিভারির অনুমোদন রয়েছে। এছাড়া বিয়ের অনুষ্ঠানে যাওয়ার জন্য বিশেষ পাসের ব্যবস্থা করা হবে। বেসরকারি অফিসগুলিতে ন্যূনতম কর্মী নিয়ে কাজ চালানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

২.উত্তরপ্রদেশ :সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রবিবার লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে উত্তরপ্রদেশে। প্রথমবার মাস্ক ছাড়া ধরা পড়লে জরিমানা দিতে হবে ১০০০ টাকা এবং দ্বিতীয়বার মাস্ক ছাড়া ধরা পড়লেই এই অঙ্কটা বেড়ে দাঁড়াবে ১০ হাজার টাকা।শুধুমাত্র জরুরি পরিষেবা ছাড়া যাবতীয় পরিষেবা বন্ধ থাকবে।১৫ মে পর্যন্ত রাজ্যের সমস্ত স্কুল বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বোর্ড পরীক্ষাও বাতিল করা হয়েছে।

৩. চন্ডীগড়: চন্ডীগড় প্রশাসন শুক্রবার রাত দশটা থেকে সোমবার ভোর পাঁচটা পর্যন্ত সপ্তাহান্তে লকডাউন ঘোষণা করেছে। জরুরি পরিষেবা, খাবারের হোম ডেলিভারির ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হয়েছে। নাগরিকদের বাড়ির মধ্যে থাকার অনুরোধ করা হয়েছে। সপ্তাহান্তে লকডাউন ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত কার্যকর থাকবে। সিনেমা হল খোলা থাকলেও ৫০ শতাংশ দর্শকের প্রবেশাধিকারে ছাড়,বন্ধ করে দেওয়া হবে স্পা, জিম, শপিং মল।

৪. রাজস্থান: করোনা সংক্রমণের রাশ টানতে ১৬ এপ্রিল সন্ধ্যা ৬টা থেকে ১৯ এপ্রিল সকাল ৫টা পর্যন্ত সপ্তাহান্তে লকডাউন ঘোষণা করেছে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্র অশোক গেহলট। ব্যাঙ্ক, এলপিজি পরিষেবা এবং ফল, সবজি এবং দুধ বিক্রেতাদের সপ্তাহান্তে কারফিউ থেকে ছাড় দেওয়া হয়েছে।সাহারা, সুজনগড় এবং রাজসমন্দ বিধানসভা কেন্দ্রগুলিতে শনিবার উপ-নির্বাচন থাকার কারণে ওই কেন্দ্রগুলোতে বিশেষ ছাড় দেওয়া হয়েছে।

৫. মহারাষ্ট্র: দেশের মধ্যে সবথেকে বেশি সংক্রমণ বেড়েছে মহারাষ্ট্রে। সেখানে ১৫ ই এপ্রিল থেকে কারফিউ ঘোষণা করা হয়েছে। ১লা মে সকাল ৭ তা পর্যন্ত এই কারফিউ কার্যকর থাকবে। ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে গোটা মহারাষ্ট্রে। নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী ছাড়া সমস্ত দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। সকাল ৭টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা থাকবে প্রয়োজনীয় সামগ্রীর দোকান।যান চলাচল স্বাভাবিক রাখা হলেও তা কেবলমাত্র এমারজেন্সি কারণেই ব্যবহার করা হবে। রাজ্যের সমস্ত দরিদ্র মানুষের পরিবারে ৩ কেজি গম ও ২ কেজি চাল পৌঁছে দেবে সরকার।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.