নয়াদিল্লি: উৎসবের মরশুমে করোনা নিয়ে বাড়ছে আতঙ্ক। তবে ফের আরও একটু সংক্রমণ কমল ভারতে।
রবিবার সকালের বুলেটিন বলছে, সংক্রমণ আরও কমে দাঁড়িয়েছে ৫০ হাজার ১২৯-এ। দৈনিক সংক্রমণের হারও কম এদিন,। করোনায় মৃতের সংখ্যাও গত কয়েক দিনের তুলনায় কমেছে। দেশে এখন করোনা পজিটিভ রোগীর সংখ্যা সাড়ে ৭৮ লাখ ছাড়িয়েছে। তবে আশার কথা হল, করোনা অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যা ধীরে ধীরে কমছে।

এদিনের হিসেব অনুযায়ী, সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৬ লাখ ৬৮ হাজারে নেমেছে। অর্থাৎ অ্যাকটিভ কেস ৮.৫০ শতাংশ, যা বেশ আশাজনক। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অ্যাকটিভ কেস ১০ শতাংশের নীচে নেমে যাওয়া বেশ ভাল লক্ষণ। করোনা অ্যাকটিভ রোগী কমলে সংক্রমণের হার তথা ট্রান্সমিশন রেট আরও কমবে। এক জনের থেকে সংক্রমণ বহুজনের মধ্যে ছড়িয়ে পড়া বন্ধ হবে। ফলে করোনা কার্ভও কমতে থাকবে।

এখনও পর্যন্ত দেশে ১ লক্ষের বেশি করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে ঠিকই, তবে মৃত্যুহার ১.৫১ শতাংশ। যদিও এত জনসংখ্যার দেশে কম মৃত্যুহারেও মৃত্যুর সংখ্যা যথেষ্ট। কেন্দ্রের বুলেটিন বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ৫৭৮ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। যদিও স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দাবি, করোনায় মৃত্যুর অধিকাংশই কোমর্বিডিটির কারণে। প্রায় ৬০ শতাংশ করোনা রোগী হার্টের রোগ, ডায়াবেটিস, হাইপারটেনশন, ফুসফুসের রোগ বা ক্রনিক কিডনির রোগ, ক্যানসার ইত্যাদি জটিল রোগে আক্রান্ত।

প্রবীণরা শুধু নয়, ৪০ থেকে ৬০ বছর বয়সীদের মধ্যে কোমর্বিডিটির কারণে মৃত রোগীর সংখ্যাই বেশি। তবে এসবের পাশাপাশি করোনায় সুস্থতার হারও বেড়ে হয়েছে ৯০ শতাংশ। ৭০ লাখ কোভিড রোগী সেরে উঠেছেন। একদিনে রোগ সারিয়েছেন ৬২ হাজারের বেশি।

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।