মেরট: করোনা করাল গ্রাসে ভারত৷ কোভিড-১৯ অতিমারীর দ্বিতীয় ঢেউয়ে বিপর্যস্ত ভারত৷ চারিদিকে শুধুই হাহাকার৷ অক্সিজেনের অভাবে মৃত্যুর মিছিল৷ করোনা আক্রান্তের আত্মীয়ের জন্য অক্সিজেন চেয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় আবেদন সুরেশ রায়নার৷ আবেদনে সাড়া দিয়ে সাহায্যের হাত বাড়ালেন সোনু সুদ৷

বৃহস্পতিবার দুপুর ৩ টে নাগাদ জরুরি ভিত্তিতে অক্সিজের দরকার বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় সাহায্য চাইলেন টিম ইন্ডিয়ার প্রাক্তন তথা চেন্নাই সুপার কিংসের তারকা ব্যাটসম্যান সুরেশ রায়না। উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমুন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে ট্যাগ করে টুইটারে রায়না লেখেন, “Urgent requirement of an oxygen cylinder in Meerut for my aunt. Age– 65. Hospitalised with Sever lung infection.Covid +. SPO2 without support 70. SPO2 with support 91. Kindly help with any leads. @myogiadityanath.”

রাজ্যে অক্সিজেনের আকাল নেই বলে কিছু লোক গুজবা ছড়াচ্ছে বলে কিছুদিন আগেই মন্তব্য করেছিলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ৷ শুধু তাই নয়, গুজব ছড়ালে তাঁদের বিরুদ্ধে জাতীয় নিরাপত্তা অইনে ব্যবস্থা নেওয়ার এবং ভুয়ো দাবির জন্য তাঁদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার হুশিয়ারি দেন আদিত্যনাথ৷ কিন্তু মেরট শহরে অক্সিজেন চেয়ে টিম ইন্ডিয়ার প্রাক্তন ক্রিকেটারে সাহায্যের আবেদন প্রমাণ করে দিল কোনটা সত্যি, আর কোনটা মিথ্যা৷ টুইটারে মুখ্যমন্ত্রীকে আদিত্যনাথকে ট্যাগ করলেও সাড়া মেলেনি৷

তবে দ্রুততার সঙ্গে রায়নার পাশে দাঁড়িয়ে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন বলিউড অভিনেতা সোনু সুদ। রায়নার কাছ থেকে সিলিন্ডার পাঠানোর জন্য বিস্তারিত তথ্য জানতে চান বলি তারকা। চেন্নাই সুপার কিংসের এই তারকা ক্রিকেটার কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং তাঁকে বিস্তারিত তথ্য পাঠাচ্ছেন বলে জানান। শেষমেশ অক্সিজেন সিলিন্ডার পাওয়া গিয়েছে বলেও জানান রায়না। কিছুক্ষণ পর টিম ইন্ডিয়ার প্রাক্তন ক্রিকেটার পুনরায় টুইট করে অক্সিজেন সিলিন্ডার পাওয়া গিয়েছে বলে জানান৷ একই সঙ্গে সাহায্য করতে চাওয়া প্রত্যেককে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

এই প্রথম নয়, গত বছর করোনার সময় লকডাইনে শ্রমিক থেকে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন সোনু সুদ৷ নিজের খরচে অংসখ্যক শ্রমিককে বাড়ি ফেরানোর ব্যবস্থা করেছিলেন এই বলি অভিনেতা৷ এবারও করোনা আক্রান্তের পাশে দাঁড়িয়ে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন ‘গরিবের ভগবান’৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.