সুস্বাস্থ্যের জন্য পুষ্টি (nutrition) অত্যন্ত প্রয়োজনীয় উপাদান। আর যখন কেউ করোনা ভাইরাসের (Corona virus) মতো মারাত্বক ব্যাধি থেকে সেরে ওঠে যেখানে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হয়ে যায় তখন পুষ্টির (nutrition) প্রয়োজনীয়তা বৃদ্ধি পায়। মানব দেহ (Human body) যখন কোনো ভাইরাসের (virus) বিরুদ্ধে লড়াই করে তখন দেহে বেশি পরিমাণ এনার্জি (energy) ও তরল উপাদান (fluids) প্রয়োজন হয়। যদি কেউ খুব সম্প্রতি করোনা থেকে সেরে ওঠে তবে তাকে খাওয়া দাওয়ার দিকে বেশি সচেতন ও স্বাস্থ্যকর জীবন যাপন করতে হবে। এমন বেশ কিছু খাদ্য আছে যা খেলে আপনি দ্রুত সেরে উঠবেন। রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার ওপর করোনার প্রভাব সব থেকে বেশি পড়ে। তাই সুখাদ্য গ্রহণ করলে করোনা ক্ষয়ক্ষতি দ্রুত মেরামত হয়। ন্যাশনাল হেল্থ সার্ভিসের (National Health Service) মতামত অনুযায়ী যাঁরা করোনা থেকে সেরে উঠেছেন প্রোটিন (Protein), এনার্জি (energy), ভিটামিন (ভিটামিন), ও খনিজ উপাদান দ্রুত সেরে উঠতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা পুনরায় গড়ে তুলতে সাহায্য করে।

১. ক্যালরি: এনার্জি লেভেল বৃদ্ধি করানোর জন্য ক্যালরি জাতীয় খাবার খাওয়া প্রয়োজন। এক্ষেত্রে শস্য জাতীয় খাবার যেমন গম, মিলেট (millet), ওটস, ব্রাউন রাইস, আলু ইত্যাদি প্রত্যেকদিন খাবারে রাখা প্রয়োজন। এনার্জি বৃদ্ধি করতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত করতে এই গুলো সাহায্য করে।

২. প্রোটিন: প্রোটিন দ্রুত সরে ওঠার জন্য উপকারী। ক্ষতিকারক প্যাথজেন (Pathogen) কে প্রতিরোধ করে প্রোটিন থেকে প্রাপ্ত অ্যামিনো অ্যাসিড (Amino acids)। এই সময় রোজ ৭৫ থেকে ১০০ গ্রাম প্রোটিন প্রয়োজন। ডাল, দুধ, দুগ্ধজাত পদার্থ, সোয়া, বাদাম ও বীজ জাতীয় খাবার খাওয়া দরকার। প্রাণিজ প্রোটিন যেমন মাংস, চিকেন, ডিম খাওয়াও দরকার

৩. ফল ও সবজি: ফল ও সবজিতে প্রচুর পরিমাণ ফাইবার, ভিটামিন ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে। এই পদার্থগুলো পুনরায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তুলতে সাহায্য করে। প্রত্যেক দিন ২ কাপ তাজা ফল ও আড়াই কাপ তাজা সবজি খাওয়া প্রয়োজন। কমলালেবু, কিউই, স্ট্রবেরি, পেয়ারা, পেঁপে এই ধরনের ফল খাওয়া যেতে পারে এবং সবুজ সবজি, গাজর, লাউ জাতীয় সবজি খাওয়া প্রয়োজন।

৪. তরল পানীয়: জল জীবনের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। যা শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে এবং শরীরে থেকে বর্জ্য পদার্থ নিষ্কাশন করে। রোজ তাই কমপক্ষে ৮ থেকে ১০ গ্লাস জল খাওয়া প্রয়োজন। এছাড়াও সুপ, ভেষজ চা খাওয়া যেতে পারে। মিষ্টি জাতীয় ফলের রস খাওয়া থেকে বিরত থাকা প্রয়োজন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.