মুম্বই: দেশ করোনার মারণ থাবার স্বীকার হয়েছে। নিত্য তিন লক্ষের অধিত মানুষ করোনা সংক্রমিত হচ্ছেন। যা রীতিমত ভয়ের বিষয়। চিকিৎসকরা বার বার সাবধান হতে বলছেন। বহু সেলেবরাও তাদের অনুগামীদের বিধি মেনে চলার জন্যে অনুরোধ করছেন, তাদের সতর্ক হতে বলছেন। জনপ্রিয় গায়ক অরিজিৎ সিং এবার সোশ্যাল মিডিয়ার দ্বারা তার অনুগামীদের সাবধানতা বিধি পালন করার অনুরোধ করেছেন।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ গ্রাস করে নিচ্ছে গোটা দেশকে। অথচ বহু মানুষ এখনও এই পরিস্থিতিতাকে গুরুত্ব না দিয়ে মাস্ক ছাড়াই রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এই অবস্থায় জনপ্রিয় গায়ক অরিজিৎ সিং ফেসবুকে তার অনুগামীদের উদ্দেশে আমাদের চেতনা একত্রিত করণের বার্তা দিয়েছেন, এই কোভিড ১৯ এর সংকটজনক পরিস্থিরতি থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্যে। অরিজিৎ এদিন ফেসবুকে হিন্দি এবং ইংরাজি দুই ভাষাতেই অনুগামীদের ‘চেতনা একত্রিত করণ’এর বার্তায় তার পাশে থাকার অনুরোধ করেছেন। তিনি দুঃখের সঙ্গে বলেছেন, ‘কোন মানুষেরই আর এভাবে মারা যাওয়া উচিৎ নয়। আমি সর্বদাই প্রার্থনা করে আসছি ঈশ্বরের কাছে। আমরা একটু সচেতন আর সজাগ হলে এই যুদ্ধে জয় লাভ করবই’।

তিনি তার অনুগামীদেরও অনুরোধ করেছেন সকলের জন্যে প্রার্থনা করার। যাতে প্রত্যেক সাধারণ মানুষ নিজের ‘করোনা পরীক্ষা’ করানর সুযোগ পান, হসপিটালে ‘বেড’, ‘অক্সিজেন’, ‘ভ্যাকসিন’, ‘ওষুধপালা’ কোন কিছু থেকেই যেন তারা বঞ্চিত না হন।

অরিজিৎ প্রয়োজন ছাড়া আমাদের বাড়ির বাইরে না বেড়নোর অনুরোধও করেছেন। বেড়লেও অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে এই বার্তাও দিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, ‘কিছু সংখ্যক মানুষকে আমরা কখনই বাইরে বেড়নো থেকে আটকাতে পারিনি, তাদের আনন্দ উচ্ছ্বাস থেকেও বিরত রাখা যায়নি। কিন্তু আমরা নিজেদের এবং নিজের আশেপাশের মানুষের খেয়াল রাখার কথা মাথায় রেখেই এই বার্তা সকলের কাছে ছড়িয়ে দেওয়া প্রয়োজন। তারা যেন প্রত্যেকে মাস্ক পরেন, নিজেদের স্যানিটাইজ করেন। নিজেদের শরীর নিয়ে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে’।

প্রসঙ্গত, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের মাঝামাঝি পর্যায় এসে দাঁড়িয়েছি আমরা। তাতেই আজ শুক্রুবার দেশে সংক্রমণ তিন লাখ পেড়িয়ে গেছে। যা এই গোটা একবছরের রেকর্ড মাত্রা ছাড়িয়ে গিয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.