প্রতীকী ছবি

নয়াদিল্লি: করোনা ভাইরাস সংক্রমণের সংখ্যা বাড়ছে তবে তার গতি ঠিক কতটা তা নিশ্চিত করতে বাড়ানো হয়েছে কোভিড-১৯ পরীক্ষা। বর্তমানে প্রতিদিন ১ লাখ ২০ হাজারের বেশি স্যাম্পেল করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছে, তেমনতাই জানিয়ে দিয়েছে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ।

আরও জানানো হয়েছে, বর্তমানে মোট ৪৭৬টি সরকারি ল্যাবরেটরি পাশাপাশি ২০৫ বেসরকারি ল্যাবরেটরিতে কোভিড-১৯ পরীক্ষা করা হচ্ছে।

ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চের গবেষক নিবেদিতা গুপ্ত জানিয়েছেন, “আমাদের কাছে ৬৮১টি অনুমোদনপ্রাপ্ত ল্যাবরেটরি আছে যেখানে করোনা পরীক্ষা চলছে। ৪৭৬টি সরকারি ল্যাবরেটরি পাশাপাশি ২০৫ বেসরকারি ল্যাবরেটরিতে কোভিড-১৯ পরীক্ষা চলছে, জুনের ১ তারিখ অবধি এমন তথ্যই জানা গিয়েছে। বর্তমানে প্রতিদিন আমরা ১ লাখ ২০ হাজার করোনা পরীক্ষা করছি”।

করোনা সংক্রমন হু-হু করে বাড়ছে। লাগাম টানতে চলছে বিভিন্ন প্রচেষ্টা, তেমনই এই মারণব্যাধি সারানোর জন্য খোঁজ চলছে ওষুধের। প্রাথমিকভাবে হাইডক্সিক্লোরোকুইনে ভরসা রেখে এবার Gilead Sciences Inc’s অ্যান্টি-ভাইরাল ওষুধে অনুমোদন দিয়েছে ভারত সরকার।

অ্যান্টি-ভাইরাল ওষুধ রেমডেসিভির (remdesivir) কোভিড-১৯ রোগীদের সারিয়ে তুলতে আপদকালিনভাবে ব্যবহার করা হবে। এটি প্রথম ওষুধ যা ব্যবহার করে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল দিয়ে কোভিড রোগীদের মধ্যে উন্নতি দেখা হয়েছে।

ইউরোপিয়ান এবং সাউথ কোরিয়ান কর্তৃপক্ষের তরফেও রেমডিসিভির ওষুধের খোঁজ চলছে। গতসপ্তাহে সাউথ কোরিয়ান স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এই ওষুধ আমদানি করতে অনুরোধ জানানো হবে। জিলিড রেগুলেটরি অনুমোদন পাওয়া সময়ের অপেক্ষা, তেমনটাই জানা গিয়েছে।

ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৭ হাজার ৬১৫ জন, শেষ ২৪ ঘণ্টায় ৮.৯০৯ জন সংক্রমিত হয়েছেন। কোভীড আক্রান্ত হয়ে শেষ ২৪ ঘণ্টায় ২১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে, মোট সংখ্যা ৫৮১৫ জন। তবে এখনও অবধি ১০০,৩০৩ জন হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন বলেও জানা গিয়েছে।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প