ঢাকা: ভয়াবহ গ্রেনেড হামলা হুজি-বি জঙ্গিদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে নাশকতা ঘটানোর অভিযোগ যেমন রয়েছে তেমনই রয়েছে, বেআইনি অর্থ পাচার মামলায় যোগসাজস৷ বাংলাদেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার পুত্র তারেক রহমান ‘পলাতক’৷ বিএনপির এই সুপ্রিম নেতার বিরুদ্ধে এবার কোমর কষে নামল দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)৷ ইংল্যান্ডের তিনটি ব্যাংকে রাখা এই নেতা ও তার স্ত্রী জোবাইদা রহমানের বিপুল পরিমাণ অর্থ বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেওয়া হল৷

দুর্নীতি দমন কমিশনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী জোবাইদা রহমানের নামে থাকা যুক্তরাজ্যের একটি ব্যাংকের তিনটি হিসাব জব্দের নির্দেশ দিয়েছেন ঢাকার আদালত। গত বুধবার ঢাকা মহানগর জ্যেষ্ঠ বিশেষ জজ কে এম ইমরুল কায়েশ এ আদেশ দেন। আদেশের বিষয়টি বৃহস্পতিবার প্রকাশ পেয়েছে।

মামলায় দুদক দাবি করেছে,তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দেশ থেকে অর্থ পাচার করে বিদেশে বিনিয়োগ করার অভিযোগের অনুসন্ধান চলছে। দেখা গিয়েছে, ইংল্যান্ড থেকে ৯ হাজার ৩৪১ দশমিক ৯৩ ব্রিটিশ পাউন্ড অন্যত্র পাচার করার পরিকল্পনা করেছে তারেক রহমান৷ ইংল্যান্ডের ব্যাংকটিতে তারেক রহমানের নামে দুটি এবং তার স্ত্রীর নামে একটি অ্যাকাউন্ট রয়েছে৷ তাতে বাংলাদেশ থেকে সন্দেহজনক লেনদেন হওয়ার অভিযোগ রয়েছে। সেই অ্যাকাউন্ট বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দিয়েছে ঢাকার আদাল৷ অবশ্য ব্রিটেনের ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (এফআইইউ) এসব ব্যাংক হিসাব আগেই বাজেয়াপ্ত করেছে৷

বাংলাদেশে মোস্ট ওয়ান্টেড আসামী হলেন তারেক রহমান৷ তার পিতা জিয়াউর রহমান (প্রয়াত) প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ও মা খালেদা জিয়া প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী৷ তারেক রহমানের বিরুদ্ধে একুশে আগস্ট শেখ হাসিনার জনসভায় গ্রেনেড হামলা এবং জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলা রয়েছে৷ সেনা নিয়ন্ত্রিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে গ্রেফতার হওয়ার এক বছর বাদে সরকারের নির্বাহী আদেশে মুক্তি নিয়ে চিকিৎসার জন্য ইংল্যান্ডে গিয়েছিলেন তারেক, তারপর থেকে স্ত্রী-মেয়েকে নিয়ে সেখানেই থাকছেন তিনি।

মা খালেদা জিয়া অর্থ তছরুপ মামলায় জেলে বন্দি৷ ফলে গত জাতীয় নির্বাচনের আগে তারেক রহমান দলের সুপ্রিম নেতা হন৷