স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: দেশদ্রোহিতার অভিযোগে গ্রেফতার দুই অভিযুক্তকে বেকসুর খালাসের নির্দেশ দিল উত্তর ২৪ পরগনার বারাকপুর মহকুমা আদালত। তাদের মধ্যে একজন আবার প্রাক্তন সেনা জওয়ান৷

২০১৩ সালে ভারতীয় সেনাবাহিনীর গোপন তথ্য পাচারের অভিযোগে সিআইডি প্রথমে ওই অবসরপ্রাপ্ত সেনা জওয়ানকে গ্রেফতার করেছিল৷ তাঁর নাম মদনমোহন পাল৷ তাঁকে জেরা করেই আসিফ আলি নামে আরও একজনকে গ্রেফতার করে সিআইডি৷

আরও পড়ুন: তেলের দাম বৃদ্ধির ওপর নজর রাখছে সরকার: পেট্রলিয়াম মন্ত্রী

আদালত সূত্রে জানা গিয়েছে, অবসরপ্রাপ্ত সেনা জওয়ান মদনমোহন পালের বিরুদ্ধে মূল অভিযোগ ছিল তিনি ভারতীয় সেনাবাহিনীর গোপন তথ্য ইন্টারনেটের মাধ্যমে পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআইকে পাচার করেছিলেন। ২০১৩ সালে তাঁকে বারাকপুরের শিউলি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় তাঁর বাড়ি থেকে গ্রেফতার করেছিল সিআইডি। সেই ঘটনায় মদনমোহনকে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে দীর্ঘদিন জেরা করে ২০১৫ সালে উত্তরপ্রদেশের মেরঠ থেকে গ্রেফতার করা হয় আসিফ আলি নামে অন্য এক অভিযুক্তকে।

সোমবার দেশদ্রোহিতার অভিযোগের সেই মামলার রায়দান হল বারাকপুর মহকুমা আদালতের দ্বিতীয় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা বিচারক মীর রশিদ আলির এজলাসে। তিনি উপযুক্ত তথ্যপ্রমাণের অভাবে সিআইডি-র এই মামলায় আজ রায়দান পর্বে দুই অভিযুক্তকে বেকসুর খালাস হওয়ার নির্দেশ দেন। এদিকে মামলায় পরাজিত হলেও সিআইডির আইনজীবী সত্যব্রত দাস বলেন, ‘‘সিআইডি রায়ের কপি হাতে পাওয়ার পর উচ্চ আদালতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেবে। এই রায় বেনিফিট অফ ডাউটের ভিত্তিতে দেওয়া হয়েছে।’’

আরও পড়ুন: মমতার দলে যোগ দিলেন অধীরের সতীর্থ গৌতম

আইনজীবীর দাবি, যারা বেকসুর খালাস পেলেন, তাঁরা বাইরে থাকলে তা গণতন্ত্রের পক্ষে ক্ষতিকারক। ক্যামেরার সামনে মুখ না খুললেও এই রায়ে হতাশ এই মামলার সিআইডির তদন্তকারী অফিসাররা।