খড়দা: বৃদ্ধ দম্পতির রহস্য জনক মৃতদেহ উদ্ধার ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়াল উত্তর ২৪ পরগনার খড়দহ থানার অন্তর্গত আর এন অ্যাভিনিউ পানশিলা এলাকায়। মৃত ওই দম্পতিকে খুন করে বাইরে থেকে তালা দিয়ে পালিয়েছে দুষ্কৃতীরা, এরকমই অভিযোগ স্থানীয় বাসিন্দাদের।

গোটা ঘটনায় ব্যপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে পানশিলা এলাকায়। মৃত ওই দম্পতির নাম জানা গেছে সৌমিত্র মুখোপাধ্যায় ওরফে রতন মুখোপাধ্যায় এবং উমা মুখোপাধ্যায় ওরফে মানা । ওই দম্পতি বেশ কয়েক বছর ধরেই পশুপতি আবাসনে বসবাস করতেন । তারা নিঃসন্তান ছিলেন।

স্থানীয় সূত্রে খবর, ওই দম্পতি পেশায় গৃহ শিক্ষিক ছিলেন। পাড়ায় খুব একটা মেলামেশা করতেন না তারা। পানিহাটি পুরসভার ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের প্রাক্তন কাউন্সিলর খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসেন। তিনি বলেন, “এলাকার লোকজন ওই দম্পতির ঘরের বাইরে থেকে পচা দুর্গন্ধ পাচ্ছিলেন। তারাই পুলিশকে ফোন করে খবর দেয়। পুলিশ এসে দেখে ওই দম্পতির ঘর বাইরে থেকে তালা বন্ধ অবস্থায় ছিল। পেপার ওয়ালারা গত কয়েক দিন পেপার দিয়ে গেলেও ওই পেপার কেউ ঘরে নিয়ে যায়নি। এতেই সন্দেহ বাড়ে।

খড়দহ থানার পুলিশ এসে দরজা ভেঙ্গে ওই দম্পতির মৃতদেহ উদ্ধার করে। ওই দম্পতিকে ঘরের ভেতরে মৃত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। ওই দম্পতির ঘর ছিল লন্ডভন্ড । কি কারনে এই ঘটনা ঘটেছে বা এই ঘটনার পিছনে কারা জড়িত তা তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিক প্রশাসন।”

বাসিন্দারা জানান, “যে ভাবে ঘর লন্ডভন্ড অবস্থায় ছিল তাতে মনে হচ্ছে ডাকাতির উদ্দেশ্যে এই খুনের ঘটনা ঘটেছে। তবে যেভাবে দুর্গন্ধ বেরিয়েছে, তাতে ঘটনা ঘটেছে অন্তত তিন দিন আগে। আমরা চাই পুলিশ নিরপেক্ষ তদন্ত করে দোষীদের শাস্তির ব্যবস্থা করুক।”

খড়দহ থানার পুলিশ গোটা ঘটনার তদন্তে নেমেছে। পুলিশ ওই দম্পতির মৃতদেহ ময়না তদন্তে পাঠিয়েছে। ওই দম্পতির পাশের ফ্ল্যাটের প্রতিবেশীদের থেকে পুলিশ এই ঘটনার খোঁজ খবর নিচ্ছে।