স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্তকে আইনি নোটিশ পাঠালেন কাউন্সিলর সুভাষ বসুর স্ত্রী শর্মিষ্ঠা বসু। আগামী তিন দিনের মধ্যে নিঃশর্তে ক্ষমা না চাইলে সব্যসাচীর বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়ের করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন বিধাননগর পুরসভার ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সুভাষ বসু।

সূত্রের খবর, ওই কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ করেছে সব্যসাচী দত্ত। বিধাননগরের মেয়রের এই অভিযোগ ‘ভুয়ো’ বলে দাবি করে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন সুভাষ বসু। সোমবার এই প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে বিধাননগর পুরসভার ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সুভাষ বসু জানিয়েছেন, গত কয়েকদিন সংবাদমাধ্যমের সামনে ভিত্তিহীন বক্তব্য রেখেছিলেন সব্যসাচী দত্ত। তাতে সামাজিক ভাবে মানসম্মান হানি করেছেন। তার জন্য আইনি নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সুভাষ বসু বলেন, ‘‘স্ত্রী ও আমার তরফ থেকে সব্যসাচী দত্তকে নোটিস পাঠানো হয়েছে। বিগত ক’দিন ধরে উনি যে সমস্ত ভিত্তিহীন, আজেবাজে বক্তব্য সংবাদমাধ্যমে করেছেন, তাতে সামাজিক ভাবে মানসম্মান হানি করেছেন। ভিত্তিহীন তথ্য দিয়ে কেউ যদি আমাদের মানহানি করেন, সেজন্যই মানহানির মামলা করা করতে বাধ্য হলাম’’।

সূত্র মারফৎ জানা গিয়েছে, কয়েকদিন ধরে ওই কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ জানিয়ে বিভিন্ন হোয়াটস অ্যাপ গ্রুপে মেসেজ ফরওয়ার্ড করেছেন সব্যসাচী। যার জেরেই সব্যসাচীর বিরুদ্ধে আইনি নোটিস দিয়েছেন ওই কাউন্সিলর।

সুভাষ বসু বলেন, ‘‘সব কাউন্সলিররা তাঁর বিরুদ্ধে অনাস্থা এনেছেন। তবুও কী স্বার্থে ছল চাতুরি, আইনি কুশীলতা করে পদে থাকার জন্য মরিয়া চেষ্টা করছেন। কারণ কী? বুদ্ধি দিয়ে ভাবলে কারণ জানা যাবে। ওঁর অনেকগুলো অসমাপ্ত দুর্নীতির কাজ এখনও পর্যন্ত হয়ে ওঠেনি। মাফ করবেন দুর্নীতির কথা বলতে হল। আজ ওঁর জায়গায় যে কেউ থাকলে নিজের সম্মান বজায় রেখে ইস্তফা দিয়ে চলে যেতেন’’।

উল্লেখ্য, বিধাননগর পুরসভায় দলীয় কাউন্সিলরদের আনা অনাস্থা প্রস্তাবকে চ্যালেঞ্জ করে গত সপ্তাহেই হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেছেন মেয়র সব্যসাচী দত্ত। আজ,সোমবার বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায়ের এজলাসে সেই মামলার শুনানি থাকলেও তা পিছিয়ে গিয়েছে। আগামীকাল অর্থাৎ মঙ্গলবার সেই মামলার শুনানি রয়েছে। উল্লেখ্য, গত সপ্তাহেই সব্যসাচী দত্তের বিরুদ্ধে অনাস্থা আনেন ৩৫ জন কাউন্সিলর। আগামী ১৮ জুলাই ভোটাভুটি। তার আগে হাইকোর্টে এই মামলার রায় কী হয় সেদিকেই তাকিয়ে রাজনৈতিক মহল।