ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা:  ১২ এপ্রিল কলকাতা ও হাওড়া পুরসভায় ভোট হতে পারে৷ দুটি পুরসভার জন্য এখনও পর্যন্ত এই দিনটিই স্থির করে ফেলল রাজ্য সরকার। ২৬ ও ২৭ এপ্রিল বাকি পুরসভার ভোট চাইছে তারা৷ এই দুটি প্রস্তাবিত তারিখ নিয়ে নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হচ্ছে নবান্ন। বারাকপুরের ৮ পুরসভায় এখনই ভোট হবে না বলে সূত্রের খবর।

এপ্রিলেই কলকাতা-হাওড়া সহ রাজ্যের সিংহভাগ পুরসভার নির্বাচন করাতে চায় রাজ্য সরকার। প্রথমে কলকাতা ও হাওড়া পুরসভা ও তার ফলাফল ঘোষণার পরে বাকি ১১০টি পুরসভার নির্বাচন করার কথা ভাবছে। তবে রমজান মাস শুরুর আগে পুরভোট সম্পূর্ণ করতে চায় রাজ্য।

ইসলাম ক্যালেন্ডার অনুযায়ী, রমজান শুরু হবে ২৪ অথবা ২৫ এপ্রিল, যে দিন চাঁদ দেখা যাবে সে দিন থেকে। নবান্ন সূত্রের খবর, মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রমজান চলাকালীন ভোট করতে নারাজ।

কিন্তু কেন আগে কলকাতা ও হাওড়া পুরসভার ভোট, পরে অন্য পুরসভার?

শোনা যাচ্ছে, এ হল তৃণমূল কংগ্রেসের রাজনৈতিক কৌশল সংক্রান্ত পরামর্শদাতা প্রশান্ত কিশোরের চিন্তাভাবনা। তিনি নিশ্চিত, লোকসভা ভোটের পর থেকেই দল কলকাতায় যে ভাবে জনসংযোগ কর্মসূচি নিয়েছে, তাতে পুরভোটে অনেক ভালো ফল করা সম্ভব। বিরোধী বিজেপি, কংগ্রেস ও বামেরা শহরের মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য কিছু করে দেখাতে পারেনি। প্রশান্তের যুক্তি, কলকাতা পুরভোটের পরে সেই ফলাফল সামনে রেখে বাকি ১১১টি পুরসভা ভোট লড়া সহজ হবে।

একুশের ভোটের আগে তৃণমূলের কাছে পুরভোট হল সেমিফাইনাল ম্যাচ। এই ভোটের রেজাল্টেই বোঝা যাবে জনসমর্থন এখনও কতটা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুকূলে। তাই এ নিয়ে একেবারে কোমর বেঁধে ঝাঁপাচ্ছেন শাসকদল।