ওয়াশিংটন: করোনার জেরে ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে মার্কিন মুলুকে। বিশ্বের অন্যতম শক্তিধর রাষ্ট্র হয়েও রীতিমতো অসহায় হয়ে পড়েছে আমেরিকা। সেদেশের নাগরিকেরা যেমন মারা যাচ্ছে, তেমনই বাইরে থেকে আমাএরিকায় গিয়ে থাকা প্রবাসীদেরও মৃত্যু হচ্ছে। এবার মার্কিন মুলুকে মৃত্যু হল এক প্রবাসী ভারতীয়র।

সূত্র জানাচ্ছে, যে ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে তিনি প্রকৃতপক্ষে একজন সাংবাদিক। নিউইয়র্কের একটি হাসপাতালে করোনা পজিটিভ থাকাকালীন তাঁর মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। মৃত প্রবীণ ভারতীয়-আমেরিকান সাংবাদিকের নাম জানা গিয়েছে, ব্রহ্ম কাঞ্চিভোতলা। তিনি সংবাদ সংস্থা ইউনাইটেড নিউজ অফ ইন্ডিয়ার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন বলে জানা গিয়েছে। সোমবার রাতে হাসপাতালে তাঁর মৃত্যু হয়।

যদিও এখনও কোনও সরকারি বা বেসরকারি কোনও জায়গা থেকেই মার্কিন মুলুকে আক্রান্তদের মধ্যে কতজন ভারতীয়, এ নিয়ে কোনও তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে প্রচুর ভারতীয় মার্কিন মুলুকে থাকায় অনেকের আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।

তবে সোশ্যাল মিডিয়া থেকে প্রাপ্ত তথ্য দেখলে মনে করা হচ্ছে, আক্রান্ত ভারতীয়দের মধ্যে বেশি অংশই রয়েছে নিউইয়র্ক এবং নিউ জার্সিতে। উল্লেখ্য বিষয় হল, এই দুই রাজ্যেই সবচেয়ে বেশি প্রবাসী ভারতীয়র বাস। বর্তমানে এই দুই রাজ্যে আক্রান্ত হয়েছে মোট ১ লক্ষ ৭০ হাজার মানুষ। এদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে মোট ৫,৭০০ মানুষের।

মার্কিন মুলুকে থাকা অন্য এক ভারতীয় রাজেন্দ্র দিচপল্লী জানাচ্ছেন, তিনি এখনও বিশ্বাস করতে পারছেন না, যে তাঁর চেনা জানা লোকের সঙ্গে এই ঘটনা ঘটছে।

উল্লেখ্য, শেষ ২৪ ঘন্টায় আমেরিকায় করোনার মারণ কামড়ে মৃত্যু হয়েছে প্রায় ২০০০ জনের। মোট মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়ে গিয়েছে ১২ হাজার।

জন হপকিন্স ইউনিভার্সিটির তথ্য অনুযায়ী মৃত্যু হয়েছে ১৯৩৯ জনের। সেদেশে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ৭২২। আমেরিকার চেয়েও করোনায় মৃতের বিচারে এগিয়ে রয়েছে ইতালি ও স্পেন। ইতালিতে ১৭ হাজার ১২৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। স্পেনে সংখ্যাটা ১৩ হাজার ৭৯৮।

নাগরিকদের সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং মেনে চলতে কঠোর ভাবে পরামর্শ দিচ্ছে মার্কিন প্রশাসন। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইতিমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছে, এই সপ্তাহে আমেরিকায় পরিস্থিতি সবচেয়ে ভয়াবহ হতে পারে। আশঙ্কা করা হচ্ছে, বিশ্বের যে কোনও দেশকে মৃতের সংখ্যার নিরিখে পিছিয়ে ফেলতে পারে আমেরিকা।