লন্ডন: হাইট কি করোনার ক্ষেত্রে কোনও ফ্যাক্টর হতে পারে? একথা জোর দিয়ে বলা যায় না। তবে একটি সমীক্ষা ইঙ্গিত দিচ্ছে, ৬ ফুটের বেশি মানুষ করোনার ভাইরাসে সংক্রামিত হওয়ার সম্ভাবনা দ্বিগুণের চেয়েও বেশি। ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয় এবং ব্রিটেনের ওপেন বিশ্ববিদ্যালয় সহ আন্তর্জাতিক গবেষকদের একটি দল আমেরিকা ও ব্রিটেনের প্রায় ২০০০ মানুষের মধ্যে এই বিষয়টি সমীক্ষা চালিয়েছে।

ব্রিটিশ টেলিগ্রাফের একটি রিপোর্ট বলছে, সমীক্ষায় গবেষকরা দেখার চেষ্টা করছিলেন আক্রান্তদের কাজ অথবা তাঁদের পরিবারের থেকে কোনও সংক্রমণের সম্ভাবনা আছে কিনা। সেসময়ই গবেষকরা দেখতে পান ৬ ফুট লম্বা বা তার বেশি লম্বাদের ক্ষেত্রে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।

বিজ্ঞানীরা বলেছেন, লম্বা লোকেদের ঝুঁকি বেশি থাকার ফলে এটি সমর্থিত হচ্ছে যে, করোনা ভাইরাস বায়ুর মাধ্যমেও ছড়ায়। ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ইভান কন্টোপ্যান্টলিস জানিয়েছেন, সমীক্ষায় দেখা গেছে বাতাসে উপস্থিত ভাইরাস থেকেও সংক্রমণ ছড়ায়।

তিনি বলছেন, বাড়িতে সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে বায়ু পরিশোধনের প্রয়োজনীয়তার কথা ভেবে দেখা উচিৎ। অন্যদিকে বিশ্বজুড়ে করোনার হাত থেকে বাঁচতে শুরু হয়েছে তোড়জোড়।

চলতি বছরের শেষেই তাঁদের তৈরি করোনা ‘ভ্যাকসিন’ বিশ্ববাসীর নাগালে এস যাবে বলে আশাবাদী আমেরিকার দুই সংস্থা। দুই মার্কিন সংস্থা মর্ডেনা ও ফাইজার-এর দাবি, চলতি বছরের শেষেই তাঁদের তৈরি ভ্যাকসিন নিতে পারবেন সাধারণ মানুষ। স্বভাবতই এই খবরে নতুন করে আশায় বুক বাঁধতে শুরু করেছে বিশ্ববাসী।

অন্যদিকে, একটা অতিমারী কয়েক মাসের মধ্যে বদলে দিয়েছে আমাদের সবার জীবনযাত্রা। সুস্থ ভাবে বেঁচে থাকতে হলে এখন মাক্স, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সহ স্বাস্থ্য সংক্রান্ত যাবতীয় সতর্কতা বিধি মেনে চলা বাঞ্ছনীয়। শুধু তাই নয়, করোনার প্রতিষেধক আবিষ্কারের পরও সরকারি স্বাস্থ্য সংক্রান্ত যাবতীয় সতর্কতা বিধি মেনে চলা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এমনটায় জানাচ্ছেন মার্কিন বিশেষজ্ঞরা।

করোনাকে বশে আনতে বিশ্বের প্রায় সমস্ত দেশই কোমড় বেঁধে নেমে পড়েছে ভ্যাক্সিন আবিষ্কারের কাজে। বিজ্ঞানীদের দিনরাত এক করা অক্লান্ত পরিশ্রম এবং আলোচনা গবেষণা চলছে শুধুমাত্র করোনার দাপট থেকে বিশ্ববাসীকে মুক্তি দিতে।

কারন যে হারে সংক্রমন বাড়ছে তাতে একটা টিকাই পারে মারণ করোনার হাত থেকে সকলকে বাঁচাতে। আর যার জন্যই সারা পৃথিবীর মানুষ আজ চাতক পাখির মতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে যাচ্ছে। কবে কাটবে এই করোনার কালবেলা। আর এই করোনা আবহেই ফের সামনে এল মার্কিন বিজ্ঞানীদের চাঞ্চল্যকর এক দাবি।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ