ওয়াশিংটন: করোনা ভাইরাসের থাবা থেকে কিছুতেই বেরতে পারছে না প্রথম বিশ্বের দেশ আমেরিকা। নানা চেষ্টার পরেও কোভিড-১৯ মার্কিন মুলুকের পিছু ছাড়ছে না। শুক্রবারের রেকর্ড ভেঙে শেষ ২৪ ঘণ্টায় সেখানে করোনা আক্রান্ত ৯২২ জন। আতঙ্কের পারদ দ্রুত চড়ছে।

জানা গিয়েছে, নতুন করে ৯২২ জনের মৃত্যুতে বর্তমানে আমেরিকায় করোনা আক্রান্ত হয়ে ১,০৯,০৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে। আমেরিকার পরিস্থিতির ভয়াবহতা ভীত করছে গোটা বিশ্বকে। নিজের রেকর্ড নিজেই প্রতিদিন ভাঙছে এই দেশ। শুক্রবার করোনায় মারা গিয়েছিলেন ৯১৯ জন, এদিন আরও কিছুটা বেড়েছে সেই সংখ্যা।

বিশ্ব মহামারি নভেল করোনা ভাইরাসের থাবায় সবচেয়ে এখনও অবধি সবচেয়ে বিধ্বস্ত দেশ আমেরিকা। সংক্রমণ থেকে মৃত্যু সবেতেই এগিয়ে এই দেশ।

শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী,আমেরিকায় মোট করোনা সংক্রমিত ১.৮৫ মিলিয়ন মানুষ। ইতিমধ্যেই কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুতে ফ্রাগে-ক্ষোভে প্রতিবাদের সুর চরেছে। রাস্তায় নেমেছেন মানুষ। কিছুটা সংক্রমণ যদিও ওঠানামা করছে তবে এই বিস্তারিত বর্ণবিদ্বেষের প্রতিবাদে আবারও সংক্রমণ বাড়বে বলেই চিন্তাপ্রকাশ করেছেন দেশের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

অন্যদিকে ট্রাম্প ঘোষণা করেছেন যে WHO -র সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করছে আমেরিকা। সব ফান্ডিং বন্ধ করে ওই টাকা অন্য কোনও সংস্থাকে দেওয়া হবে। সংবাদসংস্থা রয়টার্স এই খবর প্রকাশ করেছে। ট্রাম্প বলেছেন WHO-এর উপর চিনের পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ রয়েছে। কিন্তু চিন ওই সংস্থাকে বছরে মাত্র ৪০ মিলিয়ন ডলার দেয় ও আমেরিকা সেখানে বছরে ৪৫০ মিলিয়ন ডলার দেয়।

করোনার জেরে জুনে জি সেভেন সামিট অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও তা পিছিয়ে দিচ্ছেন মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প। শনিবার নিজেই একথা জানিয়েছেন মার্কিন রাষ্ট্রপতি। এছাড়া তিনি জানিয়েছেন, এই সামিটে ভারত সহ অন্যান্য দেশকে আমন্ত্রণও জানাবেন।

এদিকে আবার আমেরিকা জানিয়েছে, চিনের সঙ্গে সম্পর্ক কমালে হু-এর অনুদান শুরু করবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। ঠিক এরপরেই জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুতে পরিস্থিতির পারদ চড়েছে। তাই সবমিলিয়ে বেশ টালমাটাল পরিস্থিতি আমেরিকায়। প্রসঙ্গত, বুধবার জানা গিয়েছে ট্রাম্পের প্রিয় হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু করা হবে দ্রুত। যার উপর ভিত্তি করেই আবার নতুন করে আশার আলো দেখতে পারে আমেরিকা।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প