ওয়েলিংটন: করোনা সংক্রমণের পরেও যে দেশ তা মোকাবিলা করতে সক্ষম হয়েছে তার নাম নিঃসন্দেহে নিউজিল্যান্ড। এবার ফের এক নতুন রেকর্ড। সারা বিশ্বে যখন করোনা সংক্রমণ বেড়েই চলেছে, তখন গত ১০০ দিনে নিউজিল্যান্ডে ঘরোয়া করোনা সংক্রমণ একেবারে শূন্য। তবে নাগরিকদের সতর্ক করা হয়েছে।

সরকারি ভাবে নাগরিকদের সতর্ক করে বলা হয়েছে, এখনও সতর্ক থাকা প্রয়োজন। নইলে ভিয়েতনাম বা অস্ট্রেলিয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে।

সময়মতো ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরে নিউজিল্যান্ড প্রশংসিত হচ্ছে বিশ্বের দরবারে। ঠিক কেমন করে ৫০ লক্ষের জনসংখ্যার এই দেশ করোনাকে নিয়ন্ত্রণ করেছে তা নিয়েও চর্চাও হয়েছে বিস্তর। প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডারনেরও প্রশংসা করছেন সকলে। নিউজিল্যান্ডকে এই মুহূর্তে বিশ্বের অন্যতম নিরাপদ দেশও বলা হচ্ছে।

তবে নিউজিল্যান্ড কর্তৃপক্ষ এখনও করোনাকে নিয়ে উদ্বিগ্ন। কারণ, সেখানকার মানুষজন সাধারণ জীবন শুরু করেছে, এমনকি করোনা পরীক্ষার ক্ষেত্রেও তাঁদের অনীহা দেখা দিয়েছে। কখনও দেখা যাচ্ছে তাঁরা সরকারি ভাবে প্রকাশিত ট্রেসিং অ্যাপ ব্যবহার করছে না। কখনও আবার হাইজিন মেনে না চলারও উদাহরণ চোখে পড়ছে।

অন্যদিকে নিউজিল্যান্ড সরকার আবার করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় নিজেকে প্রস্তুত করছে। যাতে সময় মতো ভাইরাস ছড়িয়ে পড়লে পর্যাপ্ত পদক্ষেপ নেওয়া যায়।

এখন পর্যন্ত নিউজিল্যান্ডে ১২১৯ টি করোনার ঘটনা সামনে এসেছে। বর্তমানে অ্যাক্টিভ কেস নিয়ে আইসোলেশনে আছেন ২৩ জন। তবে এই ২৩ জন প্রত্যেকেই দেশের বাইরে থেকে এসেছেন। নিউজিল্যান্ডে গত ১০০ দিনে ঘরোয়া করোনা সংক্রমণ শূন্য।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও