কলকাতা ২৪x৭: উল্টে দিলাম মাঘের পাতা। দিনপঞ্জিতে আজ থেকে ফাল্গুনি হাওয়া বইবে-আজ পয়লা ফাল্গুন। এই বাংলায়, ওই বাংলাতেও। শব্দ-ভেদে বাংলাদেশে পহেলা, আর কিছু না।

ফাল্গুন মানে বসন্ত। আজ বসন্ত বরণের দিন। শীত শেষ হল এবারের মতো। হালকা শিরশিরানি হাওয়ায় ভেসে বঙ্গভূমি রঙিন আনন্দে মাতোয়ারা। এই আনন্দযজ্ঞে সবার নিমন্ত্রণ। কিন্তু এবার এই ফাগুন হাওয়ায় মারণ জীবাণু দোল খাচ্ছে। তার অদৃশ্য হামলায় হাজারের বেশি মৃত প্রতিবেশি দেশ চিনে। ৬০ হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত।

হামলাকারী করোনা ভাইরাস তেড়ে এসেছে মৃত্যুর দূত হয়ে। প্রতিষেধক নেই-চিকিৎসাও নেই। অসহায় মানুষ দিন গুণছেন ভাইরাস সংক্রমণের। আক্রান্ত সবাই যে মারা যাচ্ছেন তা নয়। তবে বেঁচে যাওয়া মানুষের হারকে তুড়ি মেরে মৃত্যু ভয়ঙ্কর নৃত্য করছে।

মৃত্যুপুরী চিন। এই দেশের সীমান্ত প্রতিবেশী যে ১৪টি দেশ তারই চারটি তথা ভারত, পাকিস্তানি, নেপাল ও ভুটান। আর পশ্চিমবঙ্গ রয়েছে এই মারণ করোনা ভাইরাসের নিকটেই। নেপাল ও ভুটানে সীমান্ত লাগোয়া বাংলায় ক্রমে ছড়াচ্ছে করোনাভাইরাস আতঙ্ক।

বাংলার পূর্ব সীমান্তে বাংলাদেশ। সেখানেও বাতাসে ফাগুন হাওয়ার ঝলক। সেই হাওয়ায় লাট খাচ্ছে করোনা আতঙ্ক। তবে বাংলাদেশে শুক্রবার(১ ফাল্গুন ) পর্যন্ত এই ভাইরাস আক্রান্ত কারোর সন্ধান নেই। যদিও করোনাভাইরাসের গর্ভগৃহ চিনের উহান থেকে আসা সবাইকে কড়া চিকিৎসা নজরদারিতে রাখা হয়েছে।

তবে ভারতে ইতিমধ্যেই এই ভাইরাস আক্রান্ত কয়েকজন চিহ্নিত। চিন থেকে আসা এদের বিশেষ পরীক্ষা শিবিরে রাখা হয়েছে। পরিস্থিতি এখনও নিয়ন্ত্রণে। জানিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রক। বৃহস্পতিবার কলকাতা বিমান বন্দরে থাইল্যান্ড থেকে আসা দুই ভারতীয় যাত্রী কে করোনাভইরাস আক্রান্ত বলে সন্দেহ করা হয়েছিল। পরে সেই তথ্য ঠিক নয় বলেই জানানো হয়।

নেপালেও করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সন্ধান আগেই মিলেছে। কিন্তু সংক্রমণ ছড়ায়নি। ভুটানে সেরকম কিছুই মেলেনি। পাকিস্তানেও সংক্রমণের খবর নেই।

তবে ভয় সর্বত্র। বিশ্ব স্বাস্থ সংস্থা-হু জানিয়েছে, চিনের ভয়াবহ পরিস্থিতি হিমশৈলের চূড়া মাত্র। জারি রয়েছে বিশ্ব জোড়া সতর্কতা। হু সূত্রে খবর, কমকরে আরও ১৮ মাস লাগবে এই ভাইরাসের প্রতিরোধক টিকা আবিষ্কার করতে। ততদিন আরও ভয়ঙ্কর আকার নেবে করোনা ভাইরাস।

ইতিমধ্যে জাপানে করোনাভাইরাসের প্রকোপ ছড়াচ্ছে। চিন থেকে থাইল্যান্ড, হংকং, ম্য়াকাও ও বিভিন্ন দেশে ধরা পড়ছে করোনাভাইরাস রোগী। এসেছে মৃত্যুর খবর। ফাগুনের প্রথম ভালোবাসার হাওয়ায় উড়ছে মৃত্যুদূত করোনাভাইরাস