প্রতীকী ছবি

সিওল ও রোম: চিনকে মৃত্যুপুরী বানিয়ে ভয়াবহ করোনাভাইরাসের নতুন আক্রমণ কেন্দ্র দক্ষিণ কোরিয়া ও ইতালি। পরিস্থিতি এমনই যে চিনের মতো ইতালিতেও কয়েকটি শহরকে অবরুদ্ধ করা হয়েছে। প্রবল আতঙ্ক ইউরোপে। চিনে ২ হাজারের বেশি মানুষ মৃত।

ইটালির প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এই নিষেধাজ্ঞা অন্তত ১৪ দিন বহাল থাকবে। বিবিসি জানাচ্ছে এই খবর। তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা, চিনের প্রতিবেশী ১৪টি দেশে তেমন ছড়ায়নি। চিন সীমান্ত লাগোয়া ইউরোপের দেশ রাশিয়ায় এখনও করোনাভাইরাস সংক্রামিত রেগীর সন্ধান মেলেনি। রুশ সরকার আগেই সীমান্ত বন্ধ করেছে।

চিনের নিকটে রাশিয়ায় কিছু হল না আর বহু দূরে ইতালিতে সংক্রমণ ছড়ানোয় চিন্তিত বিশেষজ্ঞরা। দেখা যাচ্ছে, চিন সীমান্ত লাগোয়া ১৪টি দেশে তেমন ছড়ায়নি এই ভাইরাস।যারা ভাইরাস আক্রান্ত হয়েছিলেন সবাই সুস্থ বলেই জানিয়েছে ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রক। চিন সীমান্তের বাকি দেশগুলির মধ্যে নেপাল ও ভুটান হল ভারতেরও লাগোয়া। এই দুই দেশেও ভাইরাস ছড়ায়নি এখনও।

এদিকে ইতালিতে করোনাভাইরাস ছড়ানোর খবর ঘিরে প্রতিবেশী বাকি দেশগুলি প্রবল আতঙ্কিত। বিবিসি জানাচ্ছে, ইতালির মিলান ও ভেনিস সংলগ্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে ভাইরাস। আবার এশিয়ার অপর দেশ দক্ষিণ কোরিয়ার দেগু, ইরানের কোম শহরেও ভাইরাস সংক্রমণ বাড়ছে।

ইটালির গুরুত্বপূর্ণ জনবহুল নগরী মিলান এবং ভেনিস শহরের এলাকাকে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হটস্পট বলে চিহ্নিত করা হয়েছে। এমনই জানাচ্ছে বিবিসি।