পাটনা: করোনা আতঙ্ক তাড়া করে বেড়াচ্ছে আরজেডি সুপ্রিমো লালু প্রসাদ যাদবকে। রাষ্ট্রীয় জনতা দল প্রধান লালুপ্রসাদের নিরাপত্তারক্ষী করোনা আক্রান্ত বলে জানা গিয়েছে। যে পুলিশ আধিকারিককে তাঁর নিরাপত্তার জন্য মোতায়েন করা হয়েছিল, সোমবার তাঁর রিপোর্ট পজেটিভ এসেছে বলে খবর।

সূত্রের খবর ১২দিনের ছুটিতে গিয়েছিলেন ওই পুলিশ আধিকারিক। রাজ্যের গাইডলাইনস অনুযায়ী রাঁচিতে ফেরার সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে কোয়ারেন্টাইনে যেতে হয়। আইসোলেশনে থাকার সময় তাঁর করোনা পরীক্ষা করা হয়। এরপরেই ওই নিরাপত্তারক্ষীর রিপোর্ট পজেটিভ আসে।

হিন্দুস্তান টাইমসের রিপোর্ট জানাচ্ছে সদর ডেপুটি পুলিশ সুপার দীপক পান্ডে জানিয়েছেন ১২ দিন আগেই ওই পুলিশ কর্মী বিহারে নিজের গ্রামে চলে গিয়েছিলেন। ফলে লালুপ্রসাদের সংক্রমণের ভয় নেই। ওই কর্মী সুস্থ হওয়ার পরেই কাজে যোগ দেবেন। কোভিড হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসা চলছে।

উল্লেখ্য লালু প্রসাদ যাদব নিজেই অসুস্থ। তাই তাঁর শারীরিক ক্ষতির বড় আশঙ্কা ছিল। লালু গত দু বছর ধরে রাঁচি ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সে ভর্তি। ঝাড়খন্ডের এই হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে তাঁর। কিডনি, ডায়াবেটিস ও অন্যান্য রোগের চিকিৎসা চলছে লালুর।

এমনিতেই রবিবার সন্ধ্যেতে রাশিয়াকে ছাপিয়ে করোনা তালিকায় বিশ্বে তৃতীয় স্থানে চলে এসেছিল ভারত। এরই মধ্যে ফের রেকর্ড মৃত্যু ভারতে। আগের ২৪ ঘন্টার হিসেবে আমেরিকার থেকেও করোনায় মৃত্যুতে এগিয়ে ভারত।

স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফে যে তথ্য সোমবার সকালে সামনে আনা হয়েছে, তা অনুযায়ী আগের ২৪ ঘন্টায় দেশে মৃত্যু হয়েছে ৪২৫ জনের। সারা বিশ্বে এই মৃত্যু সংখ্যার নিরিখে এগিয়ে কেবল মাত্র এগিয়ে একটি দেশ। সেটি ব্রাজিল। ২৪ ঘন্টায় সেখানে মৃত্যু হয়েছে ৬০২ জনের।

এদিকে, ভারতে ভ্যাক্সিনের ট্রায়াল শুরু হচ্ছে শীঘ্রই। ভারত বায়োটেক মানবদেহে ভ্যাক্সিন পরীক্ষার অনুমতি পেয়েছে। জানা যাচ্ছে, প্রাথমিকভাবে ১১০০ জনের শরীরে এই প্রতিষেধক পরীক্ষা হবে।

আগামী সপ্তাহেই হবে প্রথম ট্রায়াল। ১৩ জুলাইয়ের মধ্যে এনরোলমেন্ট প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করতে হবে। ফেজ ওয়ানের ফলাফল সামনে আসলে পরের ধাপে পরীক্ষা হবে। ১২টি ইনস্টিটিউট বেছে নেওয়া হয়েছে ট্রায়ালের জন্য। এর মধ্যে রয়েছে দিল্লি ও পাটনার এইমস।

সরকারের তরফে বলা হয়েছিল, আগামী ১৫ অগাস্টের মধ্যে করোনা ভ্যাক্সিন আসবে। যদিও সরকারের এই দাবির তীব্র বিরোধিতা করেছেন বিজ্ঞানীরা।

ফেজ ওয়ানে অংশ নেবে ৩৭৫ জন। তিনটি ভাগে তাদের ভাগ করা হবে। প্রত্যেককে ১৪ দিন বাদে বাদে দুটি ডোজ দেওয়া হবে। ফেজ ওয়ান শেষ হলে পরের ফেজের জন্য ৭৫০ জনকে নেওয়া হবে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ