স্টাফ রিপোর্টার,মালদহ: এবার মালদহে করোনায় আক্রান্ত হলেন স্বাস্থ্য দফতরের এক পদস্থ কর্তা। একইসঙ্গে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন জেলার বিভিন্ন থানায় কর্মরত আটজন পুলিশকর্মী।

শুক্রবার জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য দফতর সূত্রের তথ্য অনুযায়ী, এদিন মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১২ জন। যাদের মধ্যে তিনজন ভিন রাজ্য ফেরত মানুষ রয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে একজন দিল্লি ফেরত যুবতীও রয়েছেন। তার বাড়ি পুরাতন মালদহ থানা এলাকায়।

যদিও করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর চিকিৎসায় ভালো সাড়া দিয়ে সুস্থ হয়ে ফিরেছেন প্রায় ২০০ জন বলে স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর।

জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, জেলার স্বাস্থ্য দফতরের ওই পদস্থ কর্তাকে আপাতত নিজের বাড়িতে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এবং ওই স্বাস্থ্য কর্তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের মালদহ শহরের নিরাপদ জায়গা হিসাবে সার্কিট হাউসে সরিয়ে নিয়ে আসা হয়েছে।

অন্যদিকে বাকি পুলিশকর্মী সহ ভিন রাজ্য ফেরত করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা চলছে পুরাতন মালদহ থানার নারায়নপুর এলাকার কোভিড-১৯ হাসপাতালে। প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, এখন পর্যন্ত মালদহে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৩৬১। যাদের মধ্যে প্রায় ২০০ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গিয়েছেন।

এদিকে করোনা মোকাবিলায় রাতদিন এক করে যারা মানুষের জন্য পরিষেবা দেওয়ার ব্যবস্থা করছেন। সেই পুলিশ কর্মী এবং স্বাস্থ্য কর্তাদের করোনা আক্রান্ত হওয়ার ঘটনায় প্রশাসনিক মহলে উদ্বেগ ছড়িয়েছে।

মালদহ জেলায় মোট ১৪ টি থানা রয়েছে । যার মধ্যে কয়েকটি থানার পুলিশকর্মীরা করোনা মোকাবিলায় কাজ করতে গিয়েই এই সংক্রমণে আক্রান্ত হয়েছেন বলে প্রশাসন সূত্রে খবর ‌ পাশাপাশি জেলা স্বাস্থ্য দফতরের ওই পদস্থ কর্তা করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর জানাজানি হতেই মালদগ মেডিকেল কলেজ ও মুখ্য স্বাস্থ্য দফতরের অফিসার , কর্মীদের মধ্যেও উদ্বেগ ছড়িয়েছে।

এদিকে পুরাতন মালদহ ব্লকে তিনজন পরিযায়ী শ্রমিকেরা দিল্লিতেই ছিলেন। গত সাত দিন আগে তারা মালদহে নিজেদের বাড়িতে ফিরেছেন। এরপরই তাদের লালারসের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। তারপরই ওই তিনজনের করোনা পজেটিভ ধরা পড়ে । যাদের মধ্যে একজন যুবতীও রয়েছেন। পুরাতন মালদহ পুরসভার বাচামাড়ি, তারাকালি মোড় সহ তিনটি এলাকায় করোনা আক্রান্তের হদিস মিলতেই স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে ব্যাপক আতঙ্ক ছড়িয়েছে।

সংশ্লিষ্ট এলাকার বাসিন্দারা জানিয়েছেন, ভিন রাজ্য ফেরত ওই পরিবারগুলি করোনা পরীক্ষা করার পরেও এলাকায় ঘোরাফেরা করেছেন। মুদিখানা দোকানে কেনাকাটা করেছেন। অনেকের বাড়িতে যাতায়াত করেছেন। এই পরিস্থিতিতে সংক্রামন বাড়ার আশঙ্কাও করছেন সংশ্লিষ্ট এলাকার বাসিন্দারা । তাই এই অবস্থায় ওইসব এলাকায় অন্যান্য মানুষদেরও যাতে করোনা পরীক্ষার করা হয় সে দাবিও করা হয়েছে।

পুরাতন মালদহ ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক ডা: সৌভিক দাস জানিয়েছেন, পুরাতন মালদহ পুরসভা এলাকায় যে কজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, তাদের কোভিড-১৯ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে । আক্রান্তদের পরিবারগুলিকে সংশ্লিষ্ট এলাকার কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে। স্থানীয় মানুষের দাবি মতো আশেপাশের বাসিন্দাদের করোনা পরীক্ষা করার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ