বেজিং: সম্ভবত করোনার উত্তর মিলতে চলেছে। সাফল্য এল করোনা ভ্যাকসিনের পরীক্ষানিরীক্ষাতে। লকডাউন, সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং-এসবের ফলে করোনা ভাইরাসকে থামানো গিয়েছে, একথা বলা যাবে না। বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছিলেন, করোনার একমাত্র উত্তর তার ভ্যাকসিন। সেই পরীক্ষানিরীক্ষায় প্রাথমিক সাফল্য এল। জানা গিয়েছে প্রাণীদের ওপর করোনা ভ্যাকসিনের যে পরীক্ষা করা হয়েছিল, তা সফল হয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানাচ্ছে, গোটা বিশ্ব জুড়ে করোনা ভাইরাসের মোকাবিলায় প্রায় ৭০টি ভ্যাকসিনের ওপর কাজ চলছে। এর মধ্যে ৩টি মানব শরীরে পরীক্ষা হবে।

রিপোর্ট বলছে, চিনা গবেষকরা ইতিমধ্যেই বাঁদর ও ইঁদুরের ওপর যে ভ্যাকসিনের পরীক্ষা করেছিলেন, তা সফল হয়েছে।

SARS-CoV-2-এর অ্যান্টিবডি তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে ভ্যাকসিনটি। bioRxiv নামে এক জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে এই তথ্য। দুটি ভিন্ন ডোজে এই ভ্যাকসিনের পরীক্ষা চলে। ৩ ও ৬ মাইক্রোগ্রাম ভ্যাকসিন ইঁদুর ও বাঁদরদের দেওয়া হয়। জানা গিয়েছে শুধু করোনা ভাইরাস নয়, কমপক্ষে আরও ১০ রকমের ভাইরাস নির্মূল করতে সক্ষম এই ভ্যাকসিন।

এদিকে, এবার করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন ট্রায়াল শুরু হতে চলেছে, এমন সুখবর জানাচ্ছে ব্রিটেন সরকার। করোনার ভ্যাকসিন মানব শরীরে পরীক্ষা করতে চলেছেন ব্রিটিশ বিশেষজ্ঞরা। আশা করা যাচ্ছে এতে নির্মূল হবে করোনা ভাইরাস।

ব্রিটেন সরকার জানিয়েছে, শুরু হবে মানবদেহে এই ভ্যাকসিন পরীক্ষা। একটি ভ্যাকসিন নিয়ে এই মুহূর্তে কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন গিলবার্ট। এটির নাম ChAdOx1 nCoV-19। ৫১০ জন স্বেচ্ছাসেবকের টিম বানানো হয়েছে পরীক্ষার জন্য। এদের প্রত্যেকের বয়স ১৮ থেকে ৫৫ বছরের মধ্যে।

সারা বিশ্বের অন্য গবেষকদের মতো অক্সফোর্ডের গবেষকেরাও কোভিড ১৯ -এর অ্যান্টিবায়োটিক তৈরিতে কাজে লেগে পড়েছে। তবে প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছিল এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে কার্যকরী ওষুধ তৈরিতে কমপক্ষে ১২ থেকে ১৮ মাস সময় লাগবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ‘হু’ (ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন) জানাচ্ছে, এই মুহূর্তে বিশ্বজুড়ে মোট ৭০ টি করোনার ভ্যাকসিন তৈরি করা হচ্ছে। চিনে একদল গবেষক ও যুক্তরাষ্ট্রে অপর দুই গবেষক দল ইতিমধ্যেই মানব শরীরে তাঁদের তৈরি ভ্যাকসিনের পরীক্ষা করতে শুরু করেছে।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV