বেঙ্গালুরু: যে হারে গতি বাড়াচ্ছে করোনা, তাতে কমিউনিটি সংক্রমণের আশঙ্কাই সত্যি হতে চলেছে। এমনই মনে করছেন কর্ণাটকের আইন ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী জে সি মধুস্বামী। তিনি বলেন কর্ণাটকে শুরু হয়ে গিয়েছে করোনা ভাইরাসের গোষ্ঠী বা কমিউনিটি সংক্রমণ।

তবে তাঁর আশঙ্কা যদি সত্যি হয়, তবে গোয়ার পর কমিউনিটি সংক্রমণের ক্ষেত্রে এই রাজ্য দ্বিতীয় স্থানে থাকবে। মধুস্বামী সোমবার সাংবাদিকদের জানান টুমকুর কোভিড হাসপাতালে ৮জন রোগি মরণাপন্ন। তাদের পরিস্থিতি বিচার করলে করোনার কমিউনিটি সংক্রমণের আশঙ্কাই সত্যি হতে চলেছে।

মন্ত্রী জানান, পরিস্থিতি হয়ত হাতের বাইরে চলে যাচ্ছে। কোনও ভাবেই প্রশাসন করোনা ভাইরাসের সংক্রমণকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। তবে আইন মন্ত্রীর আগে কর্ণাটকে গোষ্ঠী সংক্রমণের কথা অস্বীকার করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী বি এস ইয়েদুরাপ্পা, উপ মুখ্যমন্ত্রী আশ্বথ নারায়ণ, চিকিৎসা বিজ্ঞান মন্ত্রী ডঃ সুধাকর।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের হিসেব অনুযায়ী ২৩,৪৭৪ জন করোনায় আক্রান্ত কর্ণাটকে। এর মধ্যে মারা গিয়েছেন ৩৭২ জন। এদিকে, এমনিতেই রবিবার সন্ধ্যেতে রাশিয়াকে ছাপিয়ে করোনা তালিকায় বিশ্বে তৃতীয় স্থানে চলে এসেছিল ভারত। এরই মধ্যে ফের রেকর্ড মৃত্যু ভারতে। আগের ২৪ ঘন্টার হিসেবে আমেরিকার থেকেও করোনায় মৃত্যুতে এগিয়ে ভারত।

স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফে যে তথ্য সোমবার সকালে সামনে আনা হয়েছে, তা অনুযায়ী আগের ২৪ ঘন্টায় দেশে মৃত্যু হয়েছে ৪২৫ জনের। সারা বিশ্বে এই মৃত্যু সংখ্যার নিরিখে এগিয়ে কেবল মাত্র এগিয়ে একটি দেশ। সেটি ব্রাজিল। ২৪ ঘন্টায় সেখানে মৃত্যু হয়েছে ৬০২ জনের।

ভারতে ৪২৫ জনের মৃত্যু হলেও আমেরিকাকে টপকে গিয়েছে এই সংখ্যা। ওই ২৪ ঘন্টার বিচারে আমেরিকায় মৃত্যু হয়েছে ২৭১ জনের। উল্লেখ্য, আমেরিকায় সংক্রামিত প্রায় ২৯ লক্ষ মানুষ।

এখন পর্যন্ত পাওয়া তথ্যের হিসেবে ভারতে মোট মৃত্যু হয়েছে ১৯ হাজার ৬৯৩ জনের। ব্রাজিলে মৃত্যু সংখ্যা ৬৪ হাজার ৮৬৭ ও আমেরিকায় সংখ্যাটা ১ লক্ষ ২৯ হাজার ৯৪৭ জন।

ভারতে মোট আক্রান্তের মধ্যে মৃত্যুর হার শতকরা ২.৮ জনের। যা কিনা আগের সপ্তাহে ছিল ৩ শতাংশ। ব্রাজিলে এই মৃত্যুর হার শতকরা ৪.১ ও আমেরিকায় ৪.৫ শতাংশ।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ