সিওল: চিনের মতোই করোনাভাইরাসের ভয়াবহ হামলার শিকার দক্ষিণ কোরিয়া। এশিয়ার মাটিতে এই ভাইরাসের অপর তাণ্ডব নৃত্য হচ্ছে ইরানে। আর ইউরোপের ইতালি। বিবিসি ও সিএনএনের খবর, সবমিলিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা ২,২২২ জন। মৃত্যু হয়েছে ১৩ জনের। এই সংখ্যা আরও বাড়বে বলেই আশঙ্কা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হু জানাচ্ছে পরিস্থিতি ভয়াবহ।

বিভিন্ন সংবাদ সংস্থার খবর, করোনাভাইরাসে ৮৩ হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত ২৮৫০ জনের বেশি মানুষের। শুধুমাত্র চিনে মৃত্যু হয়েছে ২৭৮৮ জনের। দক্ষিণ কোরিয়ার পরিস্থিতিও করুণ।বিবিসি জানাচ্ছে, দক্ষিণ কোরিয়ায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছেই। চিনের পর এই দেশেই সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষ এতে আক্রান্ত হয়েছেন। দক্ষিণ কোরিয়ায় করোনার সংক্রমণ ছড়িয়েছে মূলত দেইগুতে। নতুন করে আক্রান্ত ২৫৬ জনের মধ্যে শুধুমাত্র এই শহরটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১৮২ জন। দেইগুতে হাজারের বেশি আক্রান্ত।

আগেই দক্ষিণ কোরিয়া প্রশ্ন তুলেছিল, তাদের প্রতিবেশী উত্তর কোরিয়ার অবস্থান নিয়ে। কারণ, উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে চিনের অতি ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ। সিওলের বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছিলেন, উত্তর কোরিয়ার কোনও কিছুই এখনও জানা যায়নি। আশঙ্কা, চিনের সীমান্ত লাগোয়া উত্তর কোরিয়াতেও এই ভাইরাস প্রবল হানা দিয়েছে। তবে সেখানকার একনায়ক শাসক কিম জং উনের নির্দেশে সবকিছু গোপন করা হয়েছে।

রিপোর্টে বলা হয়েছে, চিন ছাড়া গত কয়েকদিনে যে কয়টি দেশে করোনাভাইরাস খুব দ্রুত ছড়িয়েছে এর মধ্যে দক্ষিণ কোরিয়ায় সর্বাধিক রোগী। গত ডিসেম্বরে চিনের হুবেই প্রদেশের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব ধরা পড়ে। এরপর ভাইরাস ছড়িয়েছে ৪০টির বেশি দেশে।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।