নয়াদিল্লি: দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লাখ ছাড়িয়েছে। দেশে সমস্ত অতীত রেকর্ড ভেঙে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। এরইমাঝে সীমান্ত রক্ষা বাহিনীতে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন আরও ৩৩ জন।

জানা গিয়েছে, শেষ ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৩৩টি করোনা সংক্রমণের ঘটনা সামনে এসেছে। বর্তমানে সীমান্ত রক্ষা বাহিনীতে (BSF) করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৯৪৪ জন।

পাশাপাশি এও জানা গিয়েছে, এখনও অবধি ৬৩৭ জন সুস্থ হয়েছেন এবং হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলেই তথ্য পাওয়া গিয়েছে। এখনও অবধি মৃত্যু হয়েছে ৫ জনের। মোট সক্রিয় ঘটনা ৩০২।

প্রসঙ্গত, মেঘালয়ে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন একজন সীমান্ত রক্ষা বাহিনী একজন। এই ঘটনায় রাজ্যে মোট করোনা আক্রান্ত ৪৮। জানা গিয়েছে বাহিনীর ঐ ব্যাক্তি বিহারের তাঁর বাড়ি থেকে জুনের ২৩ তারিখ ফিরেছেন।

সেইদিনের পরথেকেই তাঁকে কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল। তাঁর সোয়াব স্যাম্পেল সংগ্রহ করে টেস্টের জন্য পাঠানো হয়। পরীক্ষার পর জানা যায়, ঐ ব্যাক্তি উপসর্গহীন এবং বর্তমানে তিনি বিএসএফ হাসপাতালের আইসোলেশনে রয়েছেন।

এই ঘটনার পর থেকে কারা ঐ ব্যাক্তির সংস্পর্শে এসেছেন তাঁদের খুঁজে বের করা হচ্ছে তবে তিনি কোনও সাধারণ মানুষের সংস্পর্শে আসেননি বলেই জানা গিয়েছে। মেঘালয়ে এই প্রথম সীমান্ত রক্ষা বাহিনীতে কোনও ব্যাক্তি করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। শনিবার, নতুন করে ৪৩ জনের সংক্রমণে মোট সংখ্যা ছিল ৯১১ জন।

প্রসঙ্গত, গত ২৪ ঘন্টায় দেশজুড়ে আক্রান্ত ১৯ হাজার ৯০৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪১০ জনের। নতুন করে সংক্রমণের জেরে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ লক্ষ ২৮ হাজারের থেকেও কিছুটা বেশি। এরমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩ লক্ষ ৯ হাজার মানুষ। অ্যাক্টিভ কেস রয়েছে ২ লক্ষ ৩ হাজার। মৃত্যু হয়েছে ১৬ হাজার ৯৫ জনের।

এরমধ্যে চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে এনেছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। গ্রুপ অফ মিনিস্টারদের (জিওএম) বৈঠকে স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানিয়েছে দেশের আটটি রাজ্যেই মোট করোনা আক্রান্তের ৮৫ শতাংশ রয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।