ফাইল ছবি। ঘটনার সঙ্গে কোনও যোগ নেই।

স্টাফ রিপোর্টার, জলপাইগুড়ি: নো-মাস্ক নো-সেল। তবুও বাগে আনা যাচ্ছে না কিছু সবজান্তা পাবলিককে। ফলে দিন যতই যাচ্ছে ততই বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা।

করোনা রুখতে এবং মানুষদের সচেতন করতে এবার জলপাইগুড়ি দিনবাজার কমিটির পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে এক অভিনব উদ্যোগ। করোনা মোকাবিলায় সচেতনতা প্রচারের পোস্টারে এবার ব্যাবহার করা হলো খোদ পুলিশ আধিকারিকের ছবি।

সামাজিক দুরত্ব, মাস্ক ব্যাবহার, লকডাউনে গৃহবন্দী অবস্থায় একঘেয়েমি কাটানো সহ করোনা মোকাবিলায় অত্যন্ত প্রশংসনীয় ভূমিকা রয়েছে জলপাইগুড়ি কোতোয়ালি থানার আই সি বিশ্বাশ্রয় সরকারের। পাশাপাশি লকডাউন আইন ভাঙায় প্রচুর মানুষকে গ্রেফতারও করেছেন তিনি।

এহেন পুলিশ আধিকারিকের শহরে গ্রহনযোগ্যতা অনেক বেশি বলে মনে করছে জলপাইগুড়ি দিনবাজার ব্যাবসায়ী সমিতি মহল। ফলে এদিন, করোনা সচেতনতার পোস্টারে লাগানো হয় তাঁর ছবি।

শতাব্দী প্রাচীন জলপাইগুড়ি দিনবাজারে গেলে প্রতিটি দোকানের সামনে এখন দেখা যাবে জলপাইগুড়ি আইসি কোতোয়ালি বিশ্বাশ্রয় সরকারের ছবি সম্বলিত একটি পোস্টার। মুখে মাস্ক লাগানো পুলিশ অফিসারের ছবি। আর সেই পোষ্টারে লেখা আছে ‘নো মাস্ক নো সেল।’

ব্যাবসায়ী অজয় পাল জানান, মাস্ক ছাড়া তারা কোনও ক্রেতাকেই জিনিস জিনিসপত্র দিচ্ছেন না। মাক্স পড়ে আসলে তবেই মিলবে সব। এমনটাই বাজার কমিটির সিদ্ধান্ত।

করোনা সচেতনতায় কেন পুলিশ আধিকারিকের ছবি? এই প্রশ্নের উত্তরে আর এক ব্যবসায়ী জানান, জেলার আইসি হিসেবে বিশ্বাশ্রয় সরকারের বেশ ভালো জনপ্রিয়তা রয়েছে। ফলে শহরের সব বাসিন্দারা তাঁকে মেনে চলেন। তাদের আশা এমন উদ্যোগে বেশ ভালো ফল পাওয়া যাবে।

যদিও, করোনা সচেতনতা পোস্টারে তাঁর ছবি ব্যাবহার নিয়ে অবশ্য কোনও প্রতিক্রিয়া দিতে রাজি হননি আইসি বিশ্বাশ্রয় সরকার। এই ঘটনায় জলপাইগুড়ি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শ্রীকান্ত জগন্নাথরাও ইলওয়াড জানান, এই বিষয়ে তাঁর কিছু জানা নেই। খোঁজ নেবেন।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV