কলকাতা: আগেই বিমান বন্দরে চালু হয়েছে থার্মাল স্ক্যানারে পরীক্ষা৷ এবার কলকাতা ও হলদিয়া বন্দরে চালু হল ইনফ্রারেড থার্মাল স্ক্যানার৷ বিশেষ করে বিদেশ থেকে আসা নাবিক ও যাত্রীদের পরীক্ষার জন্যই এই ব্যবস্থা৷

সূত্রের খবর,কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের পর করোনা ভাইরাস নিয়ে সতর্কতা জারি করল কেন্দ্রীয় জাহাজ পরিবহন মন্ত্রক৷ দেশের বিভিন্ন বন্দরে জারি করা হয়েছে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি৷ সেই তালিকা থেকে বাদ যায়নি কলকাতা ও হলদিয়া বন্দরও৷ দু’টি বন্দরেই বসানো হয়েছে ইনফ্রারেড থার্মাল স্ক্যানার৷

কলকাতা বন্দরের ট্রাফিক ম্যানেজার হিমাংশু শেখর জানান, প্রতিদিন গড়ে কমপক্ষে ৩৫০ জনকে খিদিরপুর ও হলদিয়া বন্দরে পরীক্ষা করা হবে৷ যে সমস্ত কর্মী এই কাজ করবেন তাদের জন্যেও বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে৷ বুধবার সকালেই এসেছে প্রায় ১০০০ গ্লাভস ও মাস্ক৷ এছাড়া যারা মাল ওঠানো নামানোর কাজ করেন তাদের জন্যেও থাকছে গ্লাভস ও মাস্ক৷ তাছাড়া হলদিয়াতে বন্দরের যে নিজস্ব হাসপাতাল আছে তাতে তৈরি করা হয়েছে আইসোলেশন ওয়ার্ড৷

এদিকে করোনা ভাইরাস চিন থেকে ক্রমে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়াচ্ছে৷ এতে উদ্বিগ্ন বিভিন্ন দেশের সরকার৷ বিবিসি জানাচ্ছে, করোনা ভাইরাসের গবেষকরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন যে এই ভাইরাসের সংক্রমণ চীনের পক্ষে নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হবে না৷

আপাতত চিন থেকে দূরে থাকাই ভাইরাস থেকে বাঁচার পথ। কিন্তু সংক্রামক এই ভাইরাস নিয়ে যারা ইতিমধ্যে চিন থেকে বিভিন্ন দেশে এসেছেন তাঁদের নিয়েই চিন্তা বেশি৷ অন্যদিকে চিনের উহান সহ একাধিক শহরে ঢোকা এবং শহর থেকে বের হওয়ার ব্যাপারে কড়া কড়ি করেছে চিন সরকার৷

চিনা সংবাদপত্র পিপলস ডেইলি জানিয়েছে, বিশেষ চিকিৎসার জন্য ১৩০০ শয্যাবিশিষ্ট দ্বিতীয় একটি হাসপাতাল নির্মাণকাজ শুরু করা হবে চলতি সপ্তাহে।