বেজিং ও অটোয়া: বিশ্বকে স্তব্ধ করে দেওয়া করোনাভাইরাসের একটি টিকার প্রাথমিক সফল প্রয়োগ হয়েছে চিনেই। দ্রুত এই টিকা ব্যবহার করা হবে কানাডায়। এমনই জানাচ্ছে জাস্টিন ট্রুডোর সরকার। তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) এখনও করোনার সম্ভাব্য কোনও প্রতিষেধকের বার্তা দেয়নি।

কানাডার সংবাদ মাধ্যমের খবর, চিনা নাগরিকদের ওপর কোভিড-১৯ এর সম্ভাব্য একটি টিকা পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করা হয়। গবেষণায় দেখা গেছে, সেই টিকাস করোনা প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরিতে সক্ষম। চিন ও কানাডা ওই ভ্যাকসিন তৈরিতে কাজ করছে। রিপোর্টে বলা হয়েছে, চিনের করোনা গর্ভগৃহ উহানে ১০৮ জন বয়স্ক মানুষের ওপর প্রাথমিকভাবে ওই টিকা প্রয়োগ করা হয়।

দেখা গিয়েছে, তাদের মধ্যে করোনা প্রতিরোধের ক্ষমতা তৈরি হয়েছে। এই টিকার কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার মধ্যে হলো ইনজেকশানের জায়গায় খানিকটা ব্যথা, জ্বর, ক্লান্তি আর মাথাব্যথা।

corona virus -2

চিনের মতোই কানাডাতেও এই টিকার প্রথম ক্লিনিকাল পরীক্ষা হবে ১৮ থেকে ৫৫ বছর বয়সী ১০০ মানুষের দেহে। মোট ৫০০ মানুষের দেহে টিকা দেওয়া হবে।

এদিকে ওয়ার্ল্ডোমিটারের রিপোর্ট, বিশ্ব জুড়ে করোনা হামলার দাপট চলছেই। ৩ লক্ষ ৪০ হাজারের বেশি মত। সুস্থ হয়েছেন ২১ লক্ষের বেশি। করোনা হামলায় সর্বাধিক মৃত কানাডার প্রতিবেশী দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। ৯৭হাজারের বেশি মারা দিয়েছেন। আর কানাডায় মৃত ৬ হাজারের বেশি। চিন থেকে এই ভাইরাস ছড়িয়েছে বিশ্বে। চিনে মৃত ৪,৬৩৪ জন।

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।