নয়াদিল্লি: আবারও চাঞ্চল্যকর দাবি আইসিএমআরের। সোমবারই আইসিএমআরের তরফে জানিয়ে দেওয়া হল করোনার ভ্যাক্সিন হিউম্যান ট্রায়ালের জন্য রেডি। এমনিতেই করোনার ভ্যাক্সিন নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকার বিতর্কে ইতি টেনে সাফ জানিয়েছে, ১৫ অগাস্ট নয় করোনার ভ্যাক্সিন ‘কোভ্যাক্সিন’ জনসাধারণের জন্য আসতে ২০২১ সাল পর্যন্ত সময় লেগে যাবে। এরই মাঝে ফের আইসিএমআর জানাল করোনার ভ্যাক্সিন হিউম্যান ট্রায়ালের জন্য রেডি করা হচ্ছে।

দেশজুড়ে বেড়েই চলেছে নোভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। প্রতিদিন হাজার-হাজার মানুষ নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। এরই মাঝে দেশের দুটি সংস্থা করোনার ভ্যাক্সিন তৈরি করে ফেলেছে বলে দাবি।

দুটি সংস্থাকেই সেই প্রতিষেধক মানবদেবে পরীক্ষা করে দেখার জন্য অনুমতি দিয়েছে ড্রাগ কন্ট্রোলার অফ ইন্ডিয়া। প্রথমে ওই ভ্যাক্সিন আগামী ১৫ অগাস্ট সর্বসাধারণের জন্য বাজারে আনা হবে বলে ঘোষণা করা হয় আইসিএমআর-এর তরফে। তবে তা নিয়ে বিতর্ক বাড়ে।

বিশেষজ্ঞদের দাবি, তাড়াহুড়ো করে ভ্যাক্সিন বাজারে আনলে এর উল্টো ফলও হতে পারে। সেই কারণেই ধাপে ধাপে প্রয়োগের পরে ভ্যাক্সিনের কার্যকারিতা সম্পর্কে ১০০ শতাংশ নিশ্চিত হলে একমাত্র তবেই করোনার ভ্যাক্সিন বাজারে আনা উচিত।

বিজ্ঞান মন্ত্রকও করোনার ভ্যাক্সিন আগামী ১৫ অগাস্ট বাজারে আনার দাবিকে খারিজ করে দিয়েছে। ২০২১ সালের আগে কখনই এই ভ্যাক্সিন বাজারে আনা হবে না বলে সাই জানিয়েছেন মন্ত্রকের কর্তারা।

এরই মাঝে সোমবার আইসিএমআর জানাল, করোনার ভ্যাক্সিন মানবদেপে প্রয়োগের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। জানা গিয়েছে, প্রথম ধাপে ১০০০ রোগীর ওপর এই ভ্যাক্সিনের পরীক্ষা করা হবে। তারপর ৬ সপ্তাহ অপেক্ষা করা হবে। তারপর দ্বিতীয় ধাপে ভ্য়াক্সিনটির পরীক্ষা হবে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ