নয়াদিল্লি: সব কিছু ঠিকঠাক চললে চলতি বছরের শেষ দিকে বা আগামী বছরের শুরুর দিকেই করোনার ভ্যাকসিন বেরিয়ে যাবে। কেন্দ্রীয় সরকারের অনুমান, আর কয়েক মাসের মধ্যেই করোনার টিকাকরণের কাজও শুরু হয়ে যাবে। সেই অনুমানের ভিত্তিতেই রাজ্যগুলিকে তৈরি থাকতে নির্দেশিকা পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। করোনার টিকাকরণ নিয়ে প্রতিটি রাজ্যকে বিশেষ কমিটি তৈরির নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্র।

করোনার করাল গ্রাসে গোটা বিশ্ব। করোনার কবল থেকে মুক্তি পেতে বিশ্বের একাধিক দেশে তৈরি হচ্ছে ভ্যাকসিন। ভারতেরও বেশ কয়েকটি সংস্থা করোনার ভ্যাকসিন বানাচ্ছে। দেশে আপাতত বিভিন্ন পর্যায়ে করোনা টিকার ট্রায়াল চলছে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সফল হচ্ছে ভ্যাকসিনগুলির পরীক্ষা। কেন্দ্রীয় সরকারের অনুমান, সব কিছু ঠিকঠাক চললে দেশজুড়ে আগামী বছরের মধ্যেই টিকাকরণের কাজ শুরু হয়ে যাবে।

করোনার টিকাকরণ নিয়ে দেশের সব রাজ্য-সহ কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে নির্দেশিকা পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। টিকাকরণ কর্মসূচির জন্য রাজ্যগুলিকে বিশেষ কমিটি গড়ার নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্র।

মূলত তিনটি স্তরে এই কমিটি তৈরির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মুখ্যসচিবের নেতৃত্বে থাকবে স্টেট স্টিয়ারিং কমিটি। এছাড়ও অতিরিক্ত মুখ্যসচিব (স্বাস্থ্য)-র নেতৃত্বে থাকবে রাাজ্যের টাস্ক ফোর্স। জেলাশাসকের নেতৃত্বে থাকবে জেলা টাস্ক ফোর্স।

করোনার ভ্যাকসিন হাতে এসে গেলে দ্রুত তা রাজ্যে-রাজ্যে পৌঁছে দিতে চায় কেন্দ্রীয় সরকার। করোনার ভ্যাকসিন বন্টন প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা রাখতে বদ্ধপরিকর কেন্দ্র। দেশের প্রতিটি নাগরিক যাতে এই ভ্যাকসিন পান সেব্যাপারে যথোপযুক্ত পদক্ষেপ করতে রাজ্য সরকারগুলিকে একাধিক কমিটির মাধ্যমে সেই কাজে নজরদারি রাখতে নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

দেশজুড়ে এখনও উদ্বেগজনক পরিস্থিতি তৈরি করে রেখেছে করোনা। প্রতিদিন হাজার-হাজার মানুষ নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হচ্ছেন। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যু। প্রতিদিনই প্রায় ৫০ হাজার মানুষ নতুন করে করোনা আক্রান্ত হচ্ছেন দেশজুড়ে। রাজ্যে-রাজ্যে ছড়াচ্ছে সংক্রমণ। উৎসবের মরশুম শেষে দেশে করোনার সংক্রমণ আরও বিপজ্জনক আকার নিতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

দেশজুড়ে মেট করোনা সংক্রমিতের সংখ্যা ৮১ লক্ষের গণ্ডি ছাড়িয়েছে। ওয়ার্ল্ডোমিটারের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, শনিবার পর্যন্ত দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৮১ লক্ষ ৩৭ হাজার ১১৯। যদিও ইতিমধ্যেই ৭৪ লক্ষ ৩২ হাজার ৮২৯ জন করোনামুক্ত হয়েছেন। দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১ লক্ষ ২১ হাজার ৬৮১।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.